মোঃ জুয়েল রানাঃ কুমিল্লার তিতাস উপজেলায় পারিবারিক কলহের জেরে ছেলের হাতে দুই দফায় মার খেয়ে লতিফা বেগম (৫৭) নামের এক নারী বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

মঙ্গলবার (২২ অক্টোবর) ভোরে তিতাসের কড়িকান্দি ইউনিয়নের বন্দরামপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

তবে ঘটনার পর থেকে ছেলে শাকিল পলাতক থাকলেও স্ত্রী জেসমিনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসে পুলিশ।

স্থানীয়ও সূত্রে জানা যায়, পারিবারিক বিভিন্ন বিষয় ও জমিজমা নিয়ে গতকাল সোমবার দুপুরে শাকিলের সঙ্গে মতবিরোধ হয় তার মায়ের। একপর্যায়ে শাকিল তার মাকে মারধর করেন। বিষয়টি ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্য আবুল কাশেম মুন্সীকে জানালে ক্ষুব্ধ হয়ে শাকিল আবারও তার মাকে মারধর করেন। পরে রাতে পাশের বাড়িতে চলে যান তিনি। আজ (মঙ্গলবার) সকালে বাড়িতে এসে তিনি বিষপান করেন। এর কিছুক্ষণ পর তিনি মারা যান।

কড়িকান্দি ইউপির সদস্য আবুল কাশেম মুন্সী বলেন, শাকিলের মা লতিফা বেগম আমার কাছে এসে ছেলের নির্যাতনের ব্যাপারে অভিযোগ করলে আমি শাকিলকে আমার কাছে পাঠাতে বলি। পরে বিষয়টি নিয়ে আজ (মঙ্গলবার) সমাধান করার জন্য কথা থাকলেও সকালে জানতে পারি লতিফা বেগম বিষপান করে আত্মহত্যা করেছেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে তিতাস থানার এসআই মধুসূদন বলেন, জমিজমা নিয়ে পারিবারিক কলহের জেরে শাকিল তার মাকে মারধর করেন। এবং ছেলের হাতে মার খাওয়ার অপমান সহ্য করতে না পেরে তিনি বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন বলে প্রাথমিকভাবে ধারনা করা গেছে। তবে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন এলে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে এবং শাকিলকে ধরার জন্য অভিযান চলছে বলেও জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।