কুমিল্লা কেন্দ্রীয় কারাগারে মাদকসহ এক কারারক্ষীকে আটক করেছে কারা কর্তৃপক্ষ। বুধবার ভোরে কারাগারের ভেতরে ডিউটিতে যাওয়ার সময় প্রবেশ করার মুহূর্তে তাকে আটক করা হয়। পরে কারা কর্তৃপক্ষ তাকে পুলিশে সোর্পদ করে।

আটক কারারক্ষী রোমান ভুইয়া চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তর উপজেলার বেলতলী বাজারের হাপানিয়া গ্রামের শাহাজাহান ভূঁইয়া ও রহিমা বেগমের ছেলে। কুমিল্লা কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার শাহাজাহান আহমেদ এ কথা নিশ্চিত করেছেন।

কুমিল্লার কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার মো. আসাদুর রহমান জানান, বৃহস্পতিবার ভোর ৬টার দিকে সিফট পরিবর্তনের সময় ডিউটিতে আসেন কারারক্ষী রোমান ভূঁইয়া। তার কারারক্ষী নম্বর ২৩৩২২। কারাগারের ভেতরে প্রবেশ করার মুহূর্তে চেক করার সময় তার কাছে প্যান্টের ভেতর বিশেষ ব্যবস্থায় পায়ের সঙ্গে লাগানো দুটি মোবাইল ফোন পাওয়া যায়। কারাবিধি অনুযায়ী এটি বিশেষ অপরাধ। পরে সঙ্গে সঙ্গে তাকে আটক করা হয়।

আটক করার পর তাকে নিয়ে তার রুমে তল্লাশি করলে তার ব্যবহৃত ট্রাঙ্কের ভেতর থেকে ৪ প্যাকেট গাঁজা ও আরো ৫টি মোবাইল ফোন ও নগদ ২০ হাজার ৫০০ টাকা পাওয়া যায়। পরে তাকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, তিনি টাকার বিনিময়ে বন্দিদের কাছে দীর্ঘদিন ধরে মাদক কেনাবেচা করে আসছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কুমিল্লা কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার শাহাজাহান আহমেদ এ কথা স্বীকার করে বলেন, মাদকের বিরুদ্ধে আমাদের নীতি জিরো টলারেন্স। সে যেই হোক নজরে আসলে অবশ্যই প্রয়োজনীয় কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সিনিয়র জেল সুপার আরো বলেন, এসপিকে বিষয়টি অবগত করেছি। আর কারাগারের পক্ষ হতে তার বিরুদ্ধে কারাবিধি অনুযায়ী বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

কারাগারের সূত্র মতে, কারারক্ষী রোমন ভূঁইয়া ২০১৮ সালের ১ জুলাই কারারক্ষী হিসেবে চাকরিকে যোগদান করেন।

বর্তমান সিনিয়র জেল সুপার মো. শাহজাহান আহমেদ ২০২০ সালের ২৬ জানুয়ারি কুমিল্লা কেন্দ্রীয় কারাগারে সিনিয়র জেল সুপার হিসেবে যোগদান করার মাত্র তিন মাসের মাথায় একই অপরাধে ওই বছরের ৬ এপ্রিল তারিকুল ইসলাম শাহিন নামে অপর এক কারারক্ষীকে মাদকসহ কারাগারের অভ্যন্তরে আটক করে আইনের হাতে সোর্পদ করেছিলেন।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: