সমাজসেবায় এগিয়ে থাকা ব্যারিস্টার সোহরাব রাজধানী ঢাকায় দুইটি বাড়িতে বসবাসরত ভাড়াটিয়া ভাড়া মওকুফ করে দেশের সর্বপ্রথম বাড়িভাড়া মওকুফকারির তালিকায় আসার পর এবার তার নিজ এলাকা বুড়িচং-ব্রাহ্মণপাড়া (কুমিল্লা-৫) আসনের নির্বাচনী এলাকায় ৫ শত অসহায়, কর্মহীন, শ্রমজীবী ও খেটে খাওয়া পরিবারের মাঝে সর্বোচ্চ সংখ্যক সাড়ে ছয় টন খাদ্যসামগ্রী এবং নগদ অর্থ দিয়ে পাশে দাঁড়িয়েছে ঢাকা সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের ঢাকা বিভাগের আইন সম্পাদক ও কুমিল্লার কৃতি সন্তান ব্যারিস্টার সোহরাব খান চৌধুরী।

করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে সারা দেশে চলছে অঘোষিত লকডাউন। খুব বেশি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হচ্ছে না কেউ। ফলে বিপাকে পড়েছে অসহায়, শ্রমজীবী ও নিম্ন আয়ের মানুষ। এ অবস্থায় এই সব মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছন তিনি।

বুড়িচং-ব্রাহ্মণপাড়ায় বিভিন্ন গ্রামের সেচ্ছাসেবীদের মাধ্যমে তালিকাভুক্ত পরিবারের মাঝে খাদ্যসামগ্রী (ত্রাণ) পৌঁছে দেন।

তিনি টেলিফোনে প্রতিবেদককে আরো জানান,নিজে উপস্থিত হতে না পারার কারণে সেচ্ছাসেবী ও তার ফেসবুকে গঠিত ত্রাণ কমিটির তত্বাবধানে বুড়িচং ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার ৫০০ পরিবারের মাঝে সর্বোচ্চ সংখ্যক খাদ্যসামগ্রী (অর্থাৎ ৬.৫ টন) দিয়ে ত্রাণ বিতরণ করেন।

অনেক প্রবাসী যারা বেকার হয়ে প্রবাসে এবং দেশে আছেন তাদের পরিবারকে এবং চক্ষু লজ্জায় যারা ত্রাণ নিতে পারেনা তাদের অনেককেই গোপনে আর্থিক অনুদান দিয়ে যাচ্ছেন। গত মাসের ঢাকায় দুই বাড়ির ভাড়াটিয়ার বাড়িভাড়া মওকুফ করে দিয়ে সারাদেশে সর্বপ্রথম বাড়িভাড়া মওকুফকারির তালিকায় আসেন। তার দেখানো পথে অনেকেই পরে তাদের বাড়িভাড়া মাফ করেন। তিনি তার ফেসবুকের একটি গ্রুপের সহয়তায় তিনি দুই উপজেলায় ত্রাণসামগ্রী বিভিন্ন গ্রামের ৫০০ অসহায় ও খেটে খাওয়া মানুষের পরিবারের মধ্যে বাড়ি বাড়ি ত্রান পৌঁছে দেন। তিনি আরো বলেন,

এই মহামারীতে চলে এসেছে পবিত্র মাহে রমজান। কিন্তু এবার মহামারী করোনার কালো ছায়ায় বিলীন হয়েছে সকল আনন্দ উৎসব আমেজ। কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষরা ঘরে থাকায় অনেক কষ্টে দিনপার করছেন। এমন পরিস্থিতিতে অনেকে লজ্জায় চাইতে পারছেন না। তাই এমন সময়ে ৫০০ অসহায় মানুষের মাঝে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিতে পেরে আমি অত্যন্ত খুশি।

পরিশেষে ফেসবুকের গ্রুপে ত্রাণ কমিটির সহায়তার সফলভাবে সম্পন্ন হওয়ায় সবাইকে ধন্যবাদ জানান।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: