আশিকুর রহমানঃ প্রশাসনের বাধ তোয়াক্কা না করে কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার মকিমপুর বাস স্ট্যান্ড সংলগ্ন সরকারী খালের মাঝখান দিয়ে রাস্তা নির্মান করে নৌকা ঘাটের কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছে এক মাটি ও বালি ব্যবসায়ী। এতে ঐ এলাকার কয়েক হাজার মানুষের নৌকা দিয়ে পানি পথে চালাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ার সম্ভবনা রয়েছে বলে জানিয়েছেন এলাকার সাধারণ মানুষ। প্রশাসনের দাবী, ইউনিয়ন ভূমি অফিস, উপজেলা ভূমি অফিস, থানা পুলিশ ও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বেশ কয়েকবার বাধা প্রদান করা হলেও প্রশাসনের বাধা উপেক্ষা করেই খাল ভরাটের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন ঐ মাটি ব্যবসায়ী।

সরজমিনে ঘুরে দেখা যায় ও এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে যানা যায়, ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার মাধবপুর ইউনিয়নের মকিমপুর গ্রামের শেখ ফরিদের ছেলে গোলাম সামদানী কুমিল্লা-সিলেট আ লিক মহা সড়কের মকিমপুর বাস স্ট্যান্ড সংলগ্ন নৌকা ঘাটের প্রায় ৩শ গজ দূরে সরকারি খালের মাঝখান দিয়ে মাটি ভারাট করে রাস্তা তৈরীর কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। এতে মকিমপুর বাস স্ট্যান্ড সংলগ্ন নৌকা ঘাটের কার্যক্রম বন্ধ হয়ে নৌকা দিয়ে পানি পথে চলাচলকারী কয়েকটি গ্রামের মানুষের হতে হচ্ছে বিভিন্ন সমস্যার সমক্ষিন।

>>আরো পড়ুনঃ  বুড়িচংয়ে শাহদৌলতপুর গ্রামে সন্ত্রাসী হামলায় একই পরিবারের ৩ জন আহত

এই ব্যাপারে ঐ ইউনিয়নের সাবেক সংরক্ষিত মহিলা ইউপি সদস্য সাজেদা বেগম জানান, আমি এই এলাকার সাবেক মহিলা মেম্বার। আমার বাড়ী এই গ্রামেই। আমি ছোটকাল থেকে দেখে আসতেছি বর্ষাকালে এই খাল দিয়ে বিভিন্ন গ্রামের সকল শ্রেণী পেশার লোকজন নৌকা দিয়ে চলাচল করে আসছে। এখনো এই এলাকার অনেক মানুষ মকিমপুর বাস স্ট্যান্ডের এই নৌকা ঘাট দিয়ে নৌকায় চরে বিয়েসহ বিভিন্ন এলাকায় যাতায়াত করে। কুমিল্লা-সিলেট আ লিক মহা সড়কের পাশের সরকারি খালের মাঝ খান দিয়ে মাটি ভারট করে রাস্তা নির্মান করে নৌকা ঘাটটির কার্যক্রম বন্ধ করায় বর্তমানে মকিমপুর (উত্তর অংশ), ঢালপাড়া, দেওরা সহ বেশ কয়েকটি গ্রামের মানুষের জন্য বর্ষাকালে চলাচলে বড় ধরনের সমস্যা তৈরী হয়েছে।

>>আরো পড়ুনঃ  কুমিল্লায় সদর দক্ষিণে ট্রাক ও মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে স্বামী-স্ত্রী নিহত

এদিকে ঐ এলাকার শহীদ মিয়া, খোরশেদ আলম, মনছুর মিয়া, মোহন মিয়া ও নূরু মিয়া, পেশকার সামসুল হক, এরশাদ মিয়া সহ বেশ কিছু লোক বলেন, উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে গোলাম সামদানীকে মাটি সরিয়ে নিয়ে এই নৌকা ঘাটটি উনমুক্ত করে দেওয়ার জন্য বেশ কয়েক বার নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। প্রশাসনের বাধাকে তোয়াক্কা না করে খাল ভরাটের কার্যক্রম চলমান রেখেছেন গোলাম সামদানী। আমরা আশা করছি প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিশেষ ভূমিকা রেখে দ্রুত সময়ের মধ্যে খাল থেকে বাধ সরিয়ে নৌকা ঘাটটি আবারো উনমুক্ত করে দেওয়া হবে।

এই ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফৌজিয়া সিদ্দিকা জানান, কুমিল্লা-সিলেট অ লিক মহা সড়কে মকিমপুর বাস স্ট্যান্ড সংলগ্ন খালটিতে মাটি ভারাট করে রাস্তা নির্মান করী ব্যাক্তিকে তার কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়ে মাটি সরিয়ে নিয়ে খালটি দ্রুত উনমুক্ত করে দেওয়ার জন্য নির্দেশনা প্রদান করেছি। এব্যাপারে ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তাকে নির্দেশনা দেওয়া আছে এবং ঐ এলাকায় গিয়ে ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা অভিযোক্তকারীকে বাধা প্রদান করে কার্যক্রম বন্ধ রেখেছে।

>>আরো পড়ুনঃ  কুমিল্লায় হোটেলের গ্রীল-মুরগিতে বিষাক্ত রং, ৫০ হাজার টাকা জরিমানা

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোহাম্মদ জাফর সাদিক চৌধুরী জানান, আমি আজ (বুধবার, ১১ সেপ্টেম্বর) ঘটনাস্থলে গিয়ে লোক মারফত অভিযোক্ত গোলাম সামদানীকে ডেকে এনে ৩দিনের মধ্যে মাটি সরিয়ে নিয়ে খালটিকে উনমুক্ত করে দেওয়ার জন্য নির্দেশনা প্রদান করেছি। আগামী ৩দিনের মধ্যে সে তার মাটি সরিয়ে খালটি উনমুক্ত করে না দিলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। এব্যাপারে অভিযোক্ত গোলাম সামদানীর সাথে মোবাইল ফোনে বেশ কয়েকবার যোগাযোগ করতে চাইলে তার মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।