ব্রাহ্মনপাড়ায় প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়ন মূলক আচরনের অভিযোগ

আশিকুর রহমানঃ কুমিল্লার ব্রাহ্মনপাড়া উপজেলার প্রফেসর সেকান্দর আলী ভুইয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে উক্ত স্কুলের শিক্ষার্থীরা প্রধান শিক্ষকের বিচারের দাবীতে লিখিত অভিযোগ করেন উক্ত বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতির নিকট। উক্ত স্কুলের পরিচালনা কমিটির সভাপতি এ এস এ মাহফুজ পবিত্র হজ পালনের জন্য সৌদি আরব থাকায় ছাত্রীদের অভিযোগটি গ্রহন করেন উক্ত স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক শাহনাজ বেগম।

লিখিত অগিযোগে উক্ত বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম শ্রেনীর ৭৬ জন শিক্ষার্থী স্বাক্ষর করেন। লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করেন প্রধান শিক্ষক কতৃর্ক শ্রেনী কক্ষে অকথ্য ভাষা ও যৌন নিপীড়ন মূলক আচরন করেন এবং শ্রেনী কক্ষে পড়াতে গিয়ে রোমান্টিক গান গাওয়া অসামাজিক কথাবার্তা ও অসালিন আচরন করে আসছেন। গত ২৯ আগষ্ট উক্ত বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা প্রধান শিক্ষকের বিচারের দাবীতে ক্লাস বর্জন করেন এবং ৩০ আগষ্ট প্রধান শিক্ষকের প্রত্যাহার ও বিচারের দাবীতে আবারও একটি লিখিত অভিযোগ দেন।

প্রফেসর সেকান্দর আলী ভুইয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের (ভারপ্রাপ্ত) প্রধান শিক্ষক শাহনাজ বেগম সাংবাদিকদের জানান আমার নিকট শিক্ষার্থীরা লিখিত অভিযোগটি দিয়েছে এবং প্রধান শিক্ষকের বিচারের দাবীতে শিক্ষার্থীরা ক্লাস বর্জন করেছে এক দিনের জন্য। একই দিনে স্কুল পরিচালনা কমিটির অন্য সদস্যদের আশ্বাসে শিক্ষার্থীরা শ্রেনী কক্ষে ফিরে যান এবং উক্ত বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ খোরশেদ আলম ১ মাসের ছুটিতে যান।

এই ব্যাপারে স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ব্যারিষ্টার আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি পবিত্র হজ পালনের জন্য সৌদি আরবে আছেন তিনি হজ পালন শেষে দেশে আসার পর প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।

এই ব্যাপারে উক্ত স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ খোরশেদ আলম সাংবাদিকদের জানান আমার বিরুদ্ধে যে সকল অভিযোগ আনা হয়েছে তাহা সম্পূন মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।

উক্ত স্কুলের শিক্ষার্থীরা সাংবাদিকদের জানান প্রধান শিক্ষককে এই স্কুল থেকে প্রত্যাহার করা না হলে আমাদেরকে স্কুল কর্তৃপক্ষ ছাড় পত্র দিয়ে এই স্কুল থেকে আমাদের অন্য স্কুলে লেখাপড়া করার জন্য সুযোগ করে দেওয়ার জন্য দাবী করেন।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন:

ভালো লাগলে শেয়ার করুনঃ