নিজস্ব প্রতিবেদকঃ কুমিল্লা মহিলা সমিতি ও কুমিল্লা ডায়াবেটিক সমিতির সভাপতি বিশিষ্ট নারী নেত্রী মেহেরুন্নেসা বাহার বলেছেন, বাঙালি সংস্কৃতিই বাঙালির প্রাণ। এই সংস্কৃতি যদি হারিয়ে যায় বাঙালি স্বত্তা আর টিকবে না। তাই দেশীয় সংস্কৃতি চর্চার পাশাপাশি অপসংস্কৃতি রুখতে হবে।ক্রীড়া ও সংস্কৃতি আমাদের শিক্ষার্থীদের দুইভাবে আলোকিত করে শারীরিকভাবে ও মানসিকভাবে। নির্মল আনন্দ দেয় পাশাপাশি মন ও মননশীলতার বিকাশ ঘটায় এবং শারীরিকভাবে সুস্থ রাখে। তাই শিক্ষার্থীদের পাঠ্য বইয়ের পাশাপাশি ক্রীড়া ও সংস্কৃতি মুখী করে গড়ে তুলতে হবে।

গতকাল রবিবার সকালে শহরতলীর বলারামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বিদ্যালয় আয়োজিত বার্ষিক ক্রীড়া,সাহিত্য ও সংস্কৃতি প্রতিযোগীতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সদর আসনের এমপি বীরমুক্তিযোদ্ধা আ.ক.ম বাহাউদ্দিন বাহারের সহধর্মেনী মিসেস মেরেুন্নেসা বাহার এ কথা বলেন।

‘সুুস্থ দেহে সুন্দর মন’ এ শ্লোগানকে ধারণ করে গতকাল রবিবার বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্যে দিয়ে বলারামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় আয়োজিত ক্রীড়া,সাহিত্য ও সংস্কৃতি প্রতিযোগীতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান বিদ্যালয় মাঠে আয়োজন করা হয়। বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহবায়ক এনামুল হক এনাম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আদর্শ সদর উপজেলার চেয়ারম্যান এড. আমিনুল ইসলাম টুটুল, উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান মো. তারিকুর রহমান জুয়েল, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হোসনেয়ারা বকুল,উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা দেলোয়ার হোসেন মজুমদার, দুর্গাপুর দক্ষিন ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মো.আমিনুল হক, বলারামপুর দিদার মডেল হাই স্কুলের সভাপতি মাওলানা মোশারফ হোসেন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মিনারা বেগম। এসময় নারীনেত্রী তাহমিনা আক্তার,ইমরোজ চৌধুরী বেবী, আদর্শ সদর উপজেলা স্বেচ্ছাাসেবক লীগের সাধারন সম্পাদক মাহবুব আলম পল্লব,ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান হাজী ফখরুল ইসলাম রুবেল, ইউপি সদস্য মো. আলাউদ্দিন, রেজাউল করিম রাজন,মহিলা সদস্য ফারহানা আক্তার পান্না, আদর্শ সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক আহম্মেদ মো.নাসির উদ্দিন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক এম এ হান্নান সহ দলীয় নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া অনুষ্ঠানে এলাকার বিভিন্ন পেশার বিপুল লোকসমাগম ঘটে।

দিনব্যাপী আয়োজিত অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বে ছিল বিভিন্ন ইভেন্টে সাংস্কৃতিক প্রতিযোগীতা। পরে শুরু হয় আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরনী। ফাঁকে চলে সংগীত ও ডিস-প্লে। এসময় অতিথিরা বিভিন্ন ইভেন্টে বিজয়ী শতাধিক শিক্ষার্থীর হাতে পুরস্কার তুলে দেন। পরে বর্ণাঢ্য সাংস্কৃতিক পরিবেশনা দেখান বিদ্যালয়ের ক্ষুদে শিল্পিরা। সাংস্কৃতিক পর্বে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অংশ গ্রহনে সঙ্গীত,নৃত্যাভিনয় ও ডিস-প্লে ও ছেলেদের শারীরিক কসরত অতিথি সহ দর্শকদের মুগ্ধ করে। সুশৃংখল অনুষ্ঠান ও সুস্থ ধারার সংস্কৃতি চর্চায় শিক্ষার্থীদের উৎসাহিত করায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথি প্রতিষ্ঠানের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকসহ সকলকে ধন্যবাদ জানান।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: