ফাইল ফটো

কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ডে এ বছর এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা থেকে ঝরে পড়েছে ৬০ হাজার শিক্ষার্থী। এর কারণ হিসেবে রয়েছে করোনার প্রভাব, আবাসস্থল বদল, বাল্যবিবাহ এবং আর্থিক সংকট। অনেকেই আবার সংসার চালাতে ঢুকে পড়েছে কাজে।

করোনা মহামারীতে দীর্ঘ বিরতির পর স্বাস্থ্যবিধি মেনে খুলেছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। দেয়া হয়েছে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার সময়সূচীও। শেষমুহূর্তে পরীক্ষার্থীদের পাঠ্যবিষয় এবং পরীক্ষা সংক্রান্ত দিকনির্দেশনাও দিচ্ছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো।

কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ডের অধীনে ৬টি জেলার পরীক্ষার্থীরা চূড়ান্ত পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছে। তবে আগে রেজিস্ট্রেশন করলেও, এসএসসির চূড়ান্ত পরীক্ষায় ফরম পূরণ করেনি ৩৫৪৯১ জন এইচএসসিতে যার সংখ্যা ২৪৯৯৪।

বিষয়টি জানতে চাইলে কুমিল্লার ফরিদা বিদ্যায়তনের প্রধান শিক্ষক মো. হানিফ মজুমদার বলেন, দেশের সামগ্রিক অবস্থার প্রভাব শিক্ষাব্যবস্থায়ও পড়েছে। অনেক শিক্ষকের চাকরি চলেও গিয়েেছে। বিশেষ করে যারা প্রাইভেট সেক্টরে কাজ করে। আবার অনেকের বেতন অর্ধেক হয়ে গেছে।

তবে অর্থাভাবে কেউ যেন ঝরে না পড়ে সেদিকে নজর রাখার কথা জানালেন কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান মো. আবদুস ছালাম। তিনি বলেন, পরীক্ষায় অংশ নিতে চাইলে মানবিক বিবেচনায় সুযোগ দেয়া হবে। তিনি বলেন, করোনা প্যান্ডেমিকের কারণে অনেকে যথসময়ে ফরম পূরণ করতে পারেনি। এখন তারা যদি আসে তবে তাদের ম্যানুয়ালি ফরম পূরণের সুযোগ দেয়া হবে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: