কুমিল্লার দাউদকান্দিতে আধুনিক নদী বন্দর হবে: নৌপরিবহন মন্ত্রী

ডেইলিকুমিল্লানিউজ ডেস্কঃ নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন, দাউদকান্দিতে একটি আধুনিক নদী বন্দর গড়ে তোলা হবে। আজ ‘দাউদকান্দি-হোমনা-রামকৃষ্ণপুর’ নৌপথের ক্যাপিটাল ড্রেজিং কাজের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি।

শাজাহান খান বলেন, বিগত সরকারগুলোর অযত্ন ও অবহেলায় দেশের অনেক নদী নাব্যতা হারিয়ে ফেলেছিল; আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে নদীগুলোর নাব্যতা ফিরিয়ে আনা ও খননের কাজ গতিশীল করেছে। সরকার ২০০৯ সাল থেকে ১৩ সাল পর্যন্ত ১৪টি ড্রেজার কিনেছে। ২০১৪ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত আরও ২০টি ড্রেজার কেনার কাজ চলছে। এছাড়া বেসরকারিভাবে আরও ৫০টি ড্রেজার সংগ্রহ করা হয়েছে। এসব ড্রেজার দিয়ে নদী খননের কাজ চলছে। এ পর্যন্ত এক হাজার ৩৮০ কিলোমিটার নৌপথ খনন করা হয়েছে। নদী খনন ও অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের জন্য তিনটি এক্সকাভেটর ক্রয় করা হয়েছে, আরো ৬টি এক্সকাভেটর ক্রয় প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে মন্ত্রী উল্লেখ করেন।
বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) চেয়ারম্যান কমডোর এম মোজাম্মেল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সংসদ সদস্য মেজর জেনারেল (অব.) মোহাম্মদ সুবিদ আলী ভূঁইয়া, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মো. আব্দুস সবুর, বাংলাদেশ নৌবাহিনীর কমান্ডার রেজা পাহলভী এবং দাউদকান্দি উপজেলার চেয়ারম্যান মেজর (অ.) মো. আলী সুমন।

শাজাহান খান বলেন, ঢাকার চারদিকে নদী তীরের উচ্ছেদকৃত ভূমি পুনরায় যাতে দখল না হয় সেজন্য বুড়িগঙ্গা, তুরাগ ও শীতলক্ষা নদীর তীরে ব্যাংক প্রটেকশনসহ ২০ কিলোমিটার ওয়াকওয়ে নির্মাণ করা হয়েছে। চলতি মেয়াদে আরো ৫০ কিলোমিটার ওয়াকওয়ে নির্মাণ হবে। পর্যায়ক্রমে ঢাকা শহরের দু’পাশে ২৪০ কিলোমিটার ওয়াকওয়ে নির্মাণ করা হবে।

উল্লেখ্য, বিআইডব্লিউটিএ’র অভ্যন্তরীণ নৌপথে ৫৩টি রুটে (প্রথম পর্যায়ে ২৪টি রুট) নদী খনন প্রকল্পের আওতায় দাউদকান্দি-হোমনা-রামকৃষ্ণপুর নৌপথে ৫০ কিলোমিটার ক্যাপিটাল ড্রেজিং করা হবে। এজন্য ব্যয় হবে ৪৪ কোটি ৭৯ লাখ টাকা। বাংলাদেশ নৌবাহিনী গোমতী, মেঘনা ও তিতাস নদীর দাউদকান্দি-হোমনা-রামকৃষ্ণপুর নৌপথে ১৯ লাখ ঘনমিটার ড্রেজিং করবে। দাউদকান্দি ব্রিজ থেকে হোমনা হয়ে রামকৃষ্ণপুর পর্যন্ত নৌ-পথটি ২০০ ফুট প্রশস্ততা ও ১২ ফুট গভীরতায় খনন করা হবে। এতে সারাবছর ৪ মিটার গভীরতার নৌ-যানসমূহ চলাচল করতে পারবে। এবছরের জুলাই থেকে শুরু হওয়া খনন কাজ ২০১৯ সালের জুনে শেষ হবে।

ফলে দাউদকান্দি হতে হোমনা-রামকৃষ্ণপুর এলাকায় নৌ-পথে সরাসরি নৌ-যোগাযোগ চালু হবে এবং যোগাযোগও উন্নত হবে।
-বাসস

     আরো পড়ুন....

পুরাতন খবরঃ

ফেসবুকে আমরাঃ