কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা পরিষদ উপনির্বাচনকে কেন্দ্র করে স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু জাহের ও আওয়ামী লীগের সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

রোববার রাতে উপজেলার সবুজপাড়া, বড়ধুশিয়া ও ধান্যদৌল এলাকায় এসব সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

এ সময় স্বতন্ত্র প্রার্থীর আনারস প্রতীকের নির্বাচনী কার্যালয় ও প্রচারণায় ব্যবহৃত একটি গাড়ি ভাংচুর করা হয়েছে। সংঘর্ষে দুই পক্ষের অন্তত তিনজন আহত হয়েছেন।

আগামী ১০ ডিসেম্বর এ উপজেলা পরিষদের উপনির্বাচনে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর খান চৌধুরী। আর স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে আনারস প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আবু জাহের।

স্থানীয়রা জানান, শনিবার রাত ৮টা থেকেই উপজেলার সবুজপাড়া এলাকায় স্বতন্ত্র প্রার্থীর নির্বাচনী অফিস বানানো নিয়ে আ.লীগ প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়। এরপর রাত ১০টা পর্যন্ত চলে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া। এ সময় আনারস প্রতীকের প্রার্থীর অফিস ভাংচুর করা হয়।

এ খবর বড়ধুশিয়া ও ধান্যদৌল এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে সেখানেও দুই পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। ধান্যদৌল এলাকায় স্বতন্ত্র প্রার্থীর নির্বাচনী একটি প্রাইভেটকার ভাংচুর করা হয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে বলে জানান স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শীরা।

ব্রাহ্মণপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজম উদ্দিন মাহমুদ বলেন, ‘স্বতন্ত্র প্রার্থী আনারস প্রতীকের আলহাজ্ব আবু জাহের ও আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকে জাহাঙ্গীর খান চৌধুরীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। গাড়ি ভাংচুর হয়েছে কিনা সে তথ্য এখনো নিশ্চত নয়। তবে তিন জন আহতের খবর পেয়েছি।’

পুলিশ পাঠিয়ে পরিস্থিতি তাৎক্ষণিকভাবে নিয়ন্ত্রণে আনা গেছে বলেও জানান তিনি।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: