কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে জবা খাতুন (৭০) নামে এক বৃদ্ধাকে গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। আজ মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) সকাল ৭টায় ঢালুয়া ইউপির চাঁন্দলা গ্রামের উত্তরপাড়া থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। জবা খাতুন ওই এলাকার মৃত আব্দুর রশিদের স্ত্রী। তিনি শারীরিকভাবে অসুস্থ ছিলেন। হাঁটা-চলা করতে পারতেন না।

জবা খাতুনের মেয়ের জামাই শাহ আলম জানান, দুদিন আগে তিনি আমাদের বাড়ি থেকে নিজ বাড়িতে আসেন। আজ সকাল সাড়ে ৭টার দিকে আমার শ্যালক আমাকে কল করে। সে জানায়, ডাকাতরা আমার শাশুড়িকে গলা কেটে হত্যা করেছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসেছি। সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে এই হত্যাকাণ্ডের সুষ্ঠু বিচার চাই।

জবা খাতুনের দেবর অলি উল্লাহ বলেন, সকালে পুত্রবধূ তার মরদেহ দেখতে পেয়ে চিৎকার করে। তার চিৎকার শুনে আমরা ঘটনাস্থলে যাই। এ সময় ঘরের আসবাবপত্র এলোমেলো অবস্থায় পড়ে ছিল। পরে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। উনি অসুস্থ মানুষ। হজ করেছেন। উনাকে এমন নির্মমভাবে হত্যা করা হবে তা মেনে নেওয়া যায় না। এ ঘটনায় দোষীদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবি জানাচ্ছি।

নাঙ্গলকোট থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবুল খায়ের বলেন, ঘটনাটি রহস্যজনক। ধারণা করা হচ্ছে, রাতের কোনো এক সময় এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। ডাকাতি নাকি অন্য কিছু তা তদন্ত ছাড়া বলা যাবে না।

তিনি বলেন, নিজ বসতঘরে বৃদ্ধা একা ছিলেন। গলা ও মুখে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ঘটনার পর দরজা-জানালা সবকিছু খোলা ছিল। দুর্বৃত্তরা দরজা ভেঙে প্রবেশ করেছে এমন আলামত পাওয়া যায়নি। মরদেহ উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: