কুমিল্লার দেবিদ্বারে বাবার সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত ও পিতৃপরিচয়ের আশায় দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন অসহায় একটি পরিবার। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় সদরের একটি হলরুমে আয়োজিত একটি সংবাদ সম্মেলনে এমন দাবি করে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন সন্তানরা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন তাদের মা রাশিদা আক্তার। তিনি উপজেলার মির্জার নগর এলাকার আবুল বাসারের প্রথম স্ত্রী। এ সময় তার দুই ছেলে উপস্থিত ছিলেন।

লিখিত বক্তব্যে স্ত্রী রাশিদা আক্তার বলেন, আমার স্বামীর বাড়ি দেবিদ্বার উপজেলার মির্জানগর এলাকায়। গত ৩০ বছরের সংসারের জীবনে আমার চারটি ছেলে সন্তান রয়েছে। আমার স্বামী আবুল বাসার আমার ও সন্তানদের অস্বীকার করে আসছে। এ নিয়ে বিভিন্ন সময়ে আমাদের নির্যাতন ও মারধর করেন। গত ২০১৮ সালে আমার কোনো অনুমতি ছাড়া সে আবার দ্বিতীয় বিয়ে করে। দ্বিতীয় বিয়ের পর থেকে আমাদের ওপর অত্যাচার ও নির্যাতনের মাত্রা আরো বেড়ে যায়। নির্যাতন ও ২য় বিয়ের করার কারণে কুমিল্লা আদালতে ৩টি মামলা করা হয়। এখন মামলাগুলো বিচারাধীন রয়েছে। বর্তমানে আমার স্বামী আবুল বাসার তার চার ঔরসজাত সন্তানকে অস্বীকার করে এবং তাদের পৈতৃক সম্পত্তি না দিতে বিভিন্ন টালবাহানা করছে।

তিনি আরো বলেন, আমাদের চারটি টিনসেড বাড়ি রয়েছে, যার ভাড়া আনুমানিক ৩০ হাজার । সে ওই ভাড়া বাবদ পুরোটা জোর করে নিয়ে যায় এবং আমাদের স্থাবর অস্থাবর সম্পত্তি মোট ২৬ শতক জমি রয়েছে। এর মধ্যে আমার সন্তানরা যেন ভবিষ্যতে সম্পত্তি দাবি করতে না পারে, সে জন্য চক্রান্ত করে তার ছোট ভাই আবদুল কুদ্দুসের পরামর্শে তার নামে ২১ শতক সম্পত্তি রেজিস্ট্রি করে দিয়ে দেন। বাকি ৫ শতক আমার স্বামীর নামেই রয়েছে।

আবদুল কুদ্দুসের নামে ২১ শতক জায়গায় কেন দেয়া হয়েছে তা জানতে চাইলে আমার স্বামী আবুল বাসার জানান, সে ওই সম্পত্তি ভাইয়ের কাছে বিক্রি করে দিয়েছে অথচ আবদুল কুদ্দুস একজন সিএনজি চালক, সে ২১ শতক জায়গা কেনার কোনো ক্ষমতা রাখেন না। তারা ভাইয়েরা মিলে পরিকল্পিতভাবে আমার সন্তানদের সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করার জন্য এ যড়যন্ত্র করছে। তারা চাইছে, আমি যেন আমার সন্তানদের নিয়ে বাড়ি থেকে বের হয়ে যাই।

আমরা যে ঘরে থাকি ওই ঘর থেকে আমাদেরকে বের করার জন্য আমার স্বামী আবুল বাসার ও দেবর কুদ্দুস নানাভাবে চাপ ও হুমকি ধামকি দিয়ে আসছে, এমনকি আমাদের ওই ঘরের বিদ্যুতের লাইন ও কেটে দিয়েছে। আমার স্বামী সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে কুমিল্লা কোর্ট থেকে আমাকে তালাকনামা নোটিশ পাঠিয়েছে, আমি আমার সন্তানদের নিয়ে নিরুপায়। আমি যেন আমার ছোট ছোট ছেলে সন্তানদের নিয়ে বাঁচতে পারি তার একটা ব্যবস্থা করতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

সংবাদ সম্মেলনে আবদুল্লাহ ও উসমান মিয়া নামে আবুল বাসারের দুই সন্তান উপস্থিত ছিলেন। তারা বলেন, আমরা বাবার কাছে একটু আশ্রয় চাই, আমাদেরকে ঘর থেকে বের করে দেয়ার চেষ্টা করছে। আমরা নাকি তার সন্তান না, এসব বলে আমাদের পৈতৃক সম্পত্তি থেকেও বঞ্চিত করা হচ্ছে। আমরা ঘর থেকে বের হলে কোথায় গিয়ে দাঁড়াবো?

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত আবুল বাসারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন,আমি সন্তানদের অস্বীকার করার অনেক কারণ রয়েছে। আপনারা সরেজমিনে এসে তদন্ত করুন আসল সত্য পেয়ে যাবেন।

সূত্রঃ ডেইলি বাংলাদেশ

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: