কুমিল্লার লাকসাম উপজেলার পশ্চিমগাঁও মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৮ শিক্ষক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষকও আছেন। এই ঘটনায় স্কুলটি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশ জার্নালকে এ তথ্য জানিয়েছেন কুমিল্লা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা (চলতি দায়িত্ব) মো. আব্দুল মান্নান।

তিনি বলেন, এই ঘটনার পর আমরা প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সঙ্গে যোগাযোগ করেছি। তাদের নির্দেশনা অনুযায়ী প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

কোন শিক্ষার্থী আক্রান্ত হয়েছে কী না জানতে চাইলে আব্দুল মান্নান বলেন, কোন শিক্ষার্থী করোনা আক্রান্ত হয়েছে কিনা এখনো জানা যায়নি। পরিস্থিতি আমরা পর্যবেক্ষণে রাখছি।

করোনা আক্রান্ত শিক্ষকরা হলেন- প্রধান শিক্ষক সম্পা রানী শাহা, সহকারী শিক্ষক মো. শাহ আলম, মো. একরামুল হক খন্দকার, মন্টু চন্দ্র ঘোষ, উম্মে কুলসুম, বিলকিছ নাসরিন, কামরুন্নাহার ও রুবিনা ইসলাম।

এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষক সম্পা রানী শাহা বলেন, শনিবার আমি ও আমার এক সহকারী জ্বরের কারণে ছুটি কাটিয়েছি। রোববার আমি প্রতিষ্ঠানে উপস্থিত হলেও পরদিন আরও দুই শিক্ষককে অসুস্থতা অনুভব করতে দেখি। মঙ্গলবার স্কুলে আসার আগেই আমি এবং আমার স্বামী লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে করোনা পরীক্ষা করতে যাই। দুজনেরই রেজাল্ট পজিটিভ আসে। পরে স্কুলে এসে পুরুষ শিক্ষকদের করোনা পরীক্ষা করতে পাঠাই। তাদেরও রেজাল্ট পজিটিভ আসায় নারী শিক্ষকদের পরীক্ষা করা হয়। তাদেরও রেজাল্ট পজিটিভ আসে। বিষয়টি লাকসাম উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুল্লাহ আল মামুনকে অবগত করি। পরবর্তীতে তিনি স্কুল বন্ধের ঘোষণা দেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা নাজিয়া বিনতে আলম বলেন, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে র‍্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্টের মাধ্যমে তাদের রিপোর্ট পজিটিভ আসে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত সকল শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: