কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়ায় পৃথক স্থানে ফাঁসিতে ঝুলে দশম শ্রেণিতে পড়ুয়া দুই স্কুলছাত্রী আত্মহত্যা করেছে। বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) দিবাগত রাতে উপজেলার মনোহরপুর ও বেজুড়া গ্রামে এই দুজনের আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে। মারা যাওয়া দুই ছাত্রীর নাম শারমিন আক্তার এবং ফাহিমা আক্তার। শারমিন মনোহরপুর গ্রামের মোহাম্মদ হোসেনের মেয়ে। সে পার্শ্ববর্তী চন্ডিপুর উচ্চবিদ্যালয়ে লেখপড়া করত। ফাহিমা আক্তার বেজুড়া দক্ষিণ পাড়ার মৃত সেকান্দর আলীর মেয়ে। সেই ওই গ্রামের শেখ মুজিব উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়ালেখা করত।

জানা যায়, গত ১৩ জানুয়ারি দিবাগত রাতে শারমিন আক্তার বাড়ির দক্ষিণ পাশের কাঁঠালগাছের ডালার সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে। পরদিন সকালে তার লাশ গাছে ঝুলে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেওয়া হয়। খবর পেয়ে ব্রাহ্মণপাড়া থানার এসআই জীবন কৃষ্ণ মজুমদার ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করে।

অন্যদিকে একই রাতে উপজেলার বেজুড়া দক্ষিণ পাড়া গ্রামের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী ফাহিমা আক্তার তার বসতঘরের দক্ষিণ পাশের জানালার গ্রিলের সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। বিষয়টি টের পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে তাকে ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসা হয়। পরে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

খবর পেয়ে ব্রাহ্মণপাড়া থানার এসআই বেলাল ঘটনাস্থালে পৌঁছে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।

দুই স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যার বিষয়টি নিশ্চিত করে ব্রাহ্মণপাড়া থানার ওসি অপেল্লা রাজু নাহা জানান, এ ঘটনায় থানায় পৃথক দুটি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে। লাশ দুটির ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: