সশরীরে চূড়ান্ত পরীক্ষার দাবিতে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের উদ্যােগে উপাচার্য বরাবর স্বারকলিপি দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। মঙ্গলবার (২৩ আগস্ট) বেলা ১টায় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ইলিয়াস হোসেন সবুজের নেতৃত্বে উপাচার্য অধ্যাপক ড. এমরান কবির চৌধুরী বরাবর স্বারকলিপি প্রদান করেন তারা। এর আগে প্রশাসনিক ভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে মানববন্ধন করেন শিক্ষার্থীরা।

এসময় শিক্ষার্থীরা ‘শিল্প কারখানা সবই চলে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে তালা ঝুলে’, ‘হয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলুন, না হয় শিক্ষাব্যবস্থা তুলে নিন’, ‘শিক্ষার অধিকার ফেরত চাই, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা চাই’সহ বিভিন্ন স্লোগান সম্বলিত প্ল্যাকার্ড নিয়ে মানববন্ধনে অংশ নেন।

এসময় প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের শিক্ষার্থী সাকিব হোসেন বলেন, প্রায় ১৭ মাস ধরে বন্ধ রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়। দুইবার সশরীরে পরীক্ষা শুরু হলেও শেষ করতে পারেনি। করোনা সংক্রমণ কমতে শুরু করেছে। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়,সাত কলেজ,চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়সহ অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সশরীরে পরীক্ষা নেয়ার ঘোষণা দিছে। কিন্তু আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় অনলাইনে পরীক্ষা নিতে চাই। অনলাইনে পরীক্ষা নেওয়া হলে প্রত্যন্ত অঞ্চলের অনেক অংশগ্রহণ করতে পারবেনা। সরকার শিক্ষার্থীদের টিকার আওতায় নিয়ে আসছে। এখন সশরীরে পরীক্ষা শুরু করা যায়।

শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ইলিয়াস হোসেন সবুজ বলেন, শিক্ষার্থীদের দাবির প্রেক্ষিতে আমরা প্রশাসনের কাছে স্বারকলিপি দিয়েছি। আগামী ২৬ তারিখে একাডেমিক কাউন্সিল আছে। সেখানে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে আশ্বস্ত করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। মাস্টার্স ২য় সেমিস্টারের পরীক্ষা দিয়ে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে পরীক্ষা শুরু করা দরকার।পরে উপাচার্য শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্য করে বলেন,আগামী ২৬ তারিখ একাডেমিক কাউন্সিলে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

উল্লেখ্য,করোনা সংক্রমণের প্রভাবে গত বছরের ১৭ মার্চ থেকে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ হয়ে যায়। পরে গেল বছরের ২০ ডিসেম্বর হতে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চূড়ান্ত পরীক্ষা নেওয়া শুরু করে। পুনরায় করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় এ বছরের ২৩ ফেব্রুয়ারি চলমান সকল পরীক্ষা স্থগিত করা হয়। পরবর্তীতে গত ৩ জুন একাডেমিক কাউন্সিলের সিদ্ধান্তে পুনরায় ১৩ জুন থেকে স্ব-শরীরে পরীক্ষা শুরু হলেও ২৫ জুন স্থগিত করা হয়।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: