নিজস্ব প্রতিবেদকঃ কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলার চেয়ারম্যান এড.মো. আমিনুল ইসলাম টুটুল বলেছেন, শিক্ষার্থীদের শুধু পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট আর জিপিএ ৫ এর প্রতিযোগীতার জন্য গড়ে তুললে চলবে না। শিক্ষার পাশাপাশি ক্রীড়া ও সংস্কৃতিতে উৎসাহিত করতে হবে। ক্রীড়া সুস্থ দেহ আর সুস্থ মন গড়ে তুলে আর সংস্কৃতি শিক্ষার্থীকে মাঝে মানবীয় গুনাবলী জাগ্রত করে। অপসংস্কৃতি বর্জন ও দেশীয় সংস্কৃতি চর্চায় শিক্ষার্থীদের এগিয়ে আসতে হবে।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার আদর্শ সদর উপজেলার পাঁচথুবী ইউনিয়নের বন্দীশাহী উচ্চ বিদ্যালয় আয়োজিত বার্ষিক ক্রীড়া,সাহিত্য ও সংস্কৃতি প্রতিযোগীতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আদর্শ সদর উপজেলার চেয়ারম্যান এড. আমিনুল ইসলাম টুটুল এসব কথা বলেন।

‘সুুস্থ দেহে সুন্দর মন’ এ শ্লোগানকে ধারণ করে গতকাল মঙ্গলবার বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্যে দিয়ে বন্দীশাহী উচ্চ বিদ্যালয় আয়োজিত ক্রীড়া,সাহিত্য ও সংস্কৃতি প্রতিযোগীতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান বিদ্যালয় মাঠে আয়োজন করা হয়। বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও পাঁচথুবী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন বাহালুলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ছিলেন আদর্শ সদর উপজেলার চেয়ারম্যান এড. আমিনুল ইসলাম টুটুল, বিশেষ অতিথি ছিলেন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হোসনেয়ারা বকুল, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো: ইকবাল হাছান। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গোলাম মোস্তফা। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বামইল স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ পুলিন চন্দ্র দে, উপজেলা আওয়ামীলীগের শিক্ষা ও মানবসম্পদ সম্পাদক অধ্যাপক জিয়াউল ইসলাম জীবন,উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনির প্রমুখ। ওই অনুষ্ঠানে এলাকার বিভিন্ন পেশার বিপুল লোকসমাগম ঘটে।

সভাপতির বক্তব্যে পাঁচথুবী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন বাহালুল বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত ২০৪১ সালের উন্নত বাংলাদেশ গড়তে হলে আজকের শিক্ষার্থীদের অবশ্যই দেশপ্রেমিক হিসেবে গড়তে হবে। শিক্ষার্থীদের বড় হওয়ার স্বপ্ন দেখতে হবে। যে স্বপ্ন নিজেকে যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলবে আর করবে দেশকে সমৃদ্ধ।

দিনব্যাপী আয়োজিত অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বে ছিল বিভিন্ন ইভেন্টে সাংস্কৃতিক প্রতিযোগীতা। মধ্যহ্নভোজের পর শুরু হয় আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণী। ফাঁকে চলে সংগীত ও ডিস-প্লে। এসময় অতিথিরা বিভিন্ন ইভেন্টে বিজয়ী শতাধিক শিক্ষার্থীর হাতে পুরস্কার তুলে দেন। পরে বর্ণাঢ্য সাংস্কৃতিক পরিবেশনা দেখান বিদ্যালয়ের ক্ষুদে শিল্পিরা। সাংস্কৃতিক পর্বে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অংশ গ্রহনে সঙ্গীত,নৃত্যাভিনয় ও ডিসপ্লে অতিথি সহ দর্শকদের মুগ্ধ করে। সুশৃংখল অনুষ্ঠান ও সুস্থ ধারার সংস্কৃতি চর্চায় শিক্ষার্থীদের উৎসাহিত করায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথি প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষকসহ শিক্ষকমন্ডলী ও ম্যানেজিং কমিটিকে ধন্যবাদ জানান।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: