কুমিল্লায় রেড জোন চিহ্নিত চার এলাকায় করোনাভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা কমতে শুরু করেছে। এতে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ ও স্থানীয় প্রশাসন লকডাউন সফল হওয়ার আশা দেখছে। যদিও রেড জোন চিহ্নিত এলাকাগুলোতে আগামী ৩ জুলাই লকডাউনের ১৪ দিন পূর্ণ হবে। এর আগেই প্রতিদিনের রিপোর্টে গত ১০ দিনের মধ্যে প্রায় ৮০ শতাংশ আক্রান্ত কমেছে রেড জোন চিহ্নিত এলাকাগুলোতে। বাকি দিনগুলোতে এই হারে আক্রান্তের সংখ্যা কমলে লকডাউন সফল হবে বলে জানান জেলা সিভিল সার্জন ডা. মো. নিয়াতুজ্জামান।

সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা যায়, কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের ৩, ১০, ১২ এবং ১৩ নম্বর ওয়ার্ডকে রেড জোন চিহ্নিত করে গত ২০ জুন লকডাউন ঘোষণা করে স্থানীয় প্রশাসন। লকডাউন ঘোষণার আগে ৩ নম্বর ওয়ার্ডে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৭৬ জন, ১০ নম্বর ওয়ার্ডে ১১৮ জন, ১২ নম্বর ওয়ার্ডে ১১ জন এবং ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে ৪৩ জন। এরমধ্যে মৃত্যু ছিল ৩ নম্বর ওয়ার্ডে এক জন এবং ১২ নম্বর ওয়ার্ডে তিন জন।

রেড জোন চিহ্নিত করে লকডাউন ঘোষণার পর গত ১০ দিনে সংক্রমণের হার কমে ৩ নম্বর ওয়ার্ডে ১০ জন, ১০ নম্বর ওয়ার্ডে ৯ জন, ১২ নম্বর ওয়ার্ডে ৮ জন এবং ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে ৪ জনে দাঁড়ায়। এছাড়া এই ১০ দিনে রেড জোন চিহ্নিত চারটি ওয়ার্ডে কোনও মৃত্যুর ঘটনা নেই।

সূত্র আরও জানায়, এই ১০ দিনে করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে সুস্থতার হারও বেড়েছে। ৩ নম্বর ওয়ার্ডে ১৮ জন, ১০ নম্বর ওয়ার্ডে ৪৩ জন, ১২ নম্বর ওয়ার্ডে ২ জন এবং ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে ২২ জন সুস্থ হয়েছেন।

সিভিল সার্জন ডা. মো. নিয়াতুজ্জামান জানান, রেড জোনে আক্রান্তের হার কমিয়ে আনতে লকডাউন ঘোষণা করা হয়। পূর্বের তুলনায় লকডাউন ঘোষণার পর এলাকাগুলোতে ৮০ শতাংশ আক্রান্তের হার কমেছে। ১৪ দিন অতিক্রম করলে এর হার আরও কমে আসবে।

তিনি আরও জানান, কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের চারটি রেড জোন এলাকায় লকডাউন সফল করতে স্থানীয় প্রশাসন, স্বাস্থ্য বিভাগ, পুলিশ, জনপ্রতিনিধিরা, স্বেচ্ছাসেবকরা দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন। স্থানীয় বাসিন্দারাও নিজ দায়িত্ববোধ থেকে লকডাউন মেনে চলেছেন। যে কারণে বর্তমানে আক্রান্তের নমুনা দেখে আশা করছি কুমিল্লার চারটি ওয়ার্ডে লকডাউন সফল হবে।

উল্লেখ্য, রেড জোন চিহ্নিত কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের চারটি ওয়ার্ডের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের কালিয়াজুরি, রেইসকোর্স, শাসনগাছা বাদশা মিয়ার বাজার; ১০ নম্বর ওয়ার্ডের ঝাউতলা, পূর্ব বাগিচাগাঁও, পুলিশ লাইন, বাদুরতলা; ১২ নম্বর ওয়ার্ডের নানুয়ার দিঘিরপাড়, নবাববাড়ি চৌমুহনী, দিগম্বরীতলা এবং ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের টমটম ব্রিজ, থিরাপুকুরপাড় ও দক্ষিণ চর্থা এলাকায় বাঁশের বেড়া দিয়ে মানুষ যাতায়াতের প্রবেশপথ বন্ধ করা হয়।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: