তীব্র যানজটে নাকাল কুমিল্লা নগরবাসী। আজ মঙ্গলবার সকাল থেকেই প্রধান সড়কে যানজট লেগে আছে। বেলা বাড়ার সাথে সাথে বেড়েছে যানজট। ফুটপাতজুড়ে মানুষের ঢল নামে। থমকে যায় সড়ক।

সকাল সাড়ে দশটা। নগরীর অন্যতম প্রবেশদ্বার শাসনগাছা। ওভারপাসের পশ্চিমপাশ থেকে রেলওয়ের গেইট পর্যন্ত বাসস্ট্যান্ড ও সড়কজুড়ে শুধু যানবাহন। পাশে ফুটপাতেও হাটাচলার জায়গা নেই। দীর্ঘ সময় জানযটে পড়ে ত্রাহি অবস্থা যাত্রী ও পথচারীদের।

বেলা ১১ টা। সরেজমিনে গিয়ে টমসমব্রীজ ও জাঙ্গালিয়া এলাকায় দেখা যায় তীব্র যানজট। যানজট নিরসনে ট্রাফিক পুলিশকে গলদগর্ম হতে দেখা যায়। থেমে থেমে যানজটে নাকাল হয়ে উঠে পথচারী ও যাত্রীরা।

এদিকে সকাল থেকেই চকবাজারের যানজট স্থায়ীরুপ ধারন করে। বেলা ১২ টায় গিয়ে দেখা যায়, চকবাজার বাস্ট্যান্ড থেকে তেলিকোনা পর্যন্ত ভয়াবহ যানজট। মাঝে মন্থর গতিতে গাড়ী চলে আবার বন্ধ হয়ে যায়। রোগী বহন করা এ্যাম্বুলেন্সগুলোকে অসহায়ের মত দাড়িয়ে থাকতে দেখা যায়।

যানজট নিরসনে ট্রাফিক পুলিশ পরিদর্শক কামাল হোসেন বলেন, এমনিতে ট্রাফিক সদস্য অপ্রতুল। তার মাঝে একজন ট্রাফিক সদস্য করোনা পজেটিভ। এমন অবস্থাতেও ট্রাফিক সদস্যরা যানজট নিরসনে তাদের দায়িত্ব পালন করছে। কিন্তু যানজট কেন সৃষ্টি হচ্ছে এমন প্রশ্নের উত্তরে পরিদর্শক কামাল হোসেন বলেন,অসচেতনভাবে রাস্তারপাশে গাড়ি পার্কিং করে রাখা, সংকীর্ণ সড়ক,কার আগে কে যাবে এমন সব কারনে যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। সবাই সচেতন না হলে শুধু ট্রাফিক পুলিশ সদস্যদের দিয়ে যানজট স্থায়ীরুপে বন্ধ করা সম্ভব নয়।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: