মো. ওমর ফারুকঃ কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে কান্দাল আদর্শ ইসলামিয়া কিন্ডারগার্টেন ও মক্তবে তালা দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে একই গ্রামের বাপ্পি মজুমদার ইউনূসের বিরুদ্ধে। সে ওই গ্রামের হেদায়েত ওরফে ছোট মোল্লার ছেলে। উপজেলার দৌলখাঁড় ইউপির কান্দাল গ্রামে ঘটনাটি ঘটে। গতকাল শুক্রবার এ ঘটনার প্রতিবাদে বিক্ষোভ করেছে এলাকাবাসী।

বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী জানান, প্রতিষ্ঠানটি ২০০৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়ে প্রতিদিন সকাল ৭ টা থেকে ৯টা পর্ষন্ত কোমলমতি শিশুদের কোরআন শিক্ষাসহ বিভিন্ন ইসলামী শিক্ষা দিয়ে আসছে। ওই প্রতিষ্ঠানে প্লে থেকে ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত ১৩০ জন শিক্ষার্থী লেখা পড়া করছেন। বাপ্পি মজুমদার কাউকে কিছু না বলে গত বৃহস্পতিবার ওই প্রতিষ্ঠানের প্রতিটি কক্ষে তালা দিয়ে স্কুলটি বন্ধ করে দেয়। এর প্রতিবাদে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা বিক্ষোভ মিছিল করে। পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানটি রক্ষা করার জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

প্রতিষ্ঠানটির সভাপতি হাজী আবুল খায়েরসহ একাধিক ব্যাক্তি বলেন, প্রতিষ্ঠানের প্রথম দিকে ইউনূছ সদস্য ছিলো এখন নেই। সে আরেকটি প্রতিষ্ঠান করেছে। এরপর থেকে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন সময় চাঁদা দাবী ও প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ করার জন্য হুমকি ধমকি দেয়। হঠাৎ সে কাউকে কোন কিছু না জানিয়ে প্রতিষ্ঠানে তালা দেয়। বাপ্পি এলাকায় শিবির নেতা হিসেবে পরিচিত। আমরা প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করে প্রতিষ্ঠানটি চালমান রাখার জন্য দাবী জানান তারা।

এ বিষয় অভিযুক্ত বাপ্পি মজুমদার ইউনূসের ব্যবহৃত মুঠোফোনে বার বার কল দিও ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

এ ব্যাপারে নাঙ্গলকোট থানার সহকারি উপ-পরিদর্শক ফয়েজ চৌধূরী জানান, প্রতিষ্ঠানের জায়গা নিয়ে আদালতে মামলা চলমান রয়েছে। প্রতিষ্ঠানে তালা দেয়ার বিষয়টি আমি জানি না।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: