মো. ওমর ফারুকঃ সোনাগাজীতে নুসরাত হত্যাকা-ের ঘটনার রেশ না কাটতেই এবার নাঙ্গলকোটে এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে ওই স্কুলের ছাত্রীকে যৌন হয়রানি অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরেজমিন ও অনুসন্ধানে জানা যায়, কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার পদুয়ার পাড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চলতি বছর পহেলা বৈশাখের দিন ৫ শ্রেণির এক ছাত্রীকে যৌন হয়রানি (শ্লীলতাহানি) করে ওই বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মিজানুর রহমান। এই ঘটনায় শিক্ষার্থীর বাবা বাদি হয়ে ৬ মে লম্পট শিক্ষকের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করেন। উল্লেখ্য প ম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে পর কয়েক বার টয়লেটের পাশের কক্ষে নিয়ে যৌন হয়রানি (শ্লীলতাহানি) অভিযোগ করে এই শিক্ষার্থী। এমন ঘটনা নিয়ে এলাকায় তোলপাড় শুরু হয়ে গেছে। ঘটনাটি মিমাংসা করার জন্য একটি মহল মরিয়া হয়ে উঠেছে। ২ মে বৃহস্পতিবার উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) দাউদ হোসেন চৌধুরীর নির্দেশে উপজেলা শিক্ষা অফিস তদন্ত করে দোষী শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়। ঘটনার সত্যতা পাওয়ায় শিক্ষককে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়।

এই বিষয়ে গতকাল মঙ্গলবার উপজেলা শিক্ষা অফিসার আল-আমীন জানান, অভিযুক্ত শিক্ষক মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে আরও তদন্ত চলছে। অপরাধীকে কোন ছাড় দেওয়া হবে না। গত ৫ মে কুমিল্লা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. আনোয়ার হোসেন সিদ্দিকীর স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে অভিযুক্ত মিজানুর রহমানকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়। তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

অভিযুক্ত মিজানুর রহমান পদুয়ার পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গত ৫ এপ্রিল ২০১৬ সালে যোগদান করেন। সে জোড্ডা ইউপির গোহারুয়া গ্রামের মৃত মজিবুল হকের ছেলে।

এই ব্যাপারে (১৪মে) মঙ্গলবার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নাঙ্গলকোট থানার উপ-পরিদর্শক সফিকুল ইসলাম জানান, এই ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করেছে ওই ছাত্রীর বাবা । আসামি বিভিন্ন জায়গা পরিবর্তন করায় তাকে আটক করা যাচ্ছে না। অভিযান চলমান রয়েছে , যে কোনো সময় তাকে আটক করতে পারবো।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: