ডেস্ক রিপোর্টঃ কুমিল্লার মুরাদনগরে বিয়ের ২৫ দিন না পেরোতেই স্বামী অনিক লাল দাসকে (২৩) কীটনাশক দিয়ে হত্যা করলেন নববধূ একা রানী দাস।

মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার ছালিয়াকান্দি গ্রামে এই ঘটনা ঘটেছে।

নিহত অনিক লাল দাস জেলার চান্দিনা উপজেলার মোহনপুর গ্রামের মানিক লাল দাসের ছেলে।

বুধবার দুপুরে নিহতের পিতা বাদী হয়ে নববধূ, তার পিতা এবং একা রানীর পরকীয়া প্রেমিক টিটু দাসকে আসামি করে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

মামলা দায়েরের পর পুলিশ একা রানীকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করেছে। একা রানী হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে ৮নং আমলী আদালতের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শাহনেওয়াজ মনিরের আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি প্রদান করেন।

>>আরো পড়ুনঃ  দাউদকান্দিতে স্কুলে ক্লাশ চলাকালে ২০ শিক্ষার্থী অসুস্থ

পুলিশ জানায়, গত ২৫ দিন পূর্বে জেলার মুরাদনগর উপজেলার ছালিয়াকান্দি গ্রামের নরেশ চন্দ্র দাসের মেয়ে একা রানী দাসের সঙ্গে সামাজিকভাবে বিয়ে হয় অনিক লাল দাসের। কিন্তু একা রানীর সঙ্গে আগে থেকেই টিটু দাস নামে এক যুবকের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। বিয়ের পর থেকেই একা রানী পরকীয়া প্রেমিক টিটু দাসের সঙ্গে নিয়মিত মোবাইলে যোগাযোগ করে আসছিল।

এরই মধ্যে টিটু দাস এবং একা রানী দাস মিলে স্বামী অনিক লাল দাসকে হত্যার পরিকল্পনা করে। পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী মঙ্গলবার দুপুরে অভিনয় করে কৌশলে যৌন উত্তেজক ট্যাবলেটের কথা বলে একা রানী তার স্বামীকে একটি কীটনাশক ট্যাবলেট খাইয়ে দেন।

পরে অনিক মৃত্যু যন্ত্রণায় ছটফট শুরু করলে আশপাশের লোকজন তাকে উদ্ধার করে রায়পুর হাসপাতালে নেয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

>>আরো পড়ুনঃ  বরুড়ার সাবেক এমপি আবু তাহেরের আজ ১৫তম মৃত্যুবার্ষিকী

এ বিষয়ে মুরাদনগর থানার ওসি মনজুর আলম বলেন, এ ঘটনায় একা রানীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে হত্যার পরিকল্পনা এবং ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে।