বুড়িচং প্রতিনিধিঃ কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার বারেশ্বর গ্রামের পদুয়া দিঘী থেকে রাতের আঁধারে বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় ৫ লক্ষাধিক টাকার মাছ চুরির ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় বুড়িচং থানায় ৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। পুলিশ অভিযান চালিয়ে মাছ ধরার কাজে ব্যবহৃত জাল উদ্ধার করেছে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, বারেশ্বর গ্রামের মৃত আলী মিয়ার পুত্র নোয়াব মিয়া ২০১৭ সালে বারেশ্বর মৌজায় অবস্থিত পদুয়া দিঘীটি লিজ নিয়ে মাছ চাষ করে আসছিল। তিনি ওই দিঘীতে রুই, কাতল, সিলভার, বিগ্রেট, কার্পো, তেলাপিয়া, সরপুটি সহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছের চাষ করছিল।

গত শুক্রবার ভোর রাতে স্থানীয় লোকজন মসজিদে নামাজ পড়তে গিয়ে দিঘীর পাড়ে পিকআপ গাড়ী ও দিঘীতে মানুষের আনাগুনা দেখতে পায়। স্থানীয় লোকজন দিঘীর পাড়ে গিয়া দেখে একই এলাকার নসু মিয়া, নুরু মিয়া, আঃ রশিদ, মোঃ শিপন মিয়া, ময়নাল হোসেন. মিজানুর রহমান, আবু নাঈম, সাকিল আহাম্মদসহ অজ্ঞাত ১০/১২ জন লোক মাছ ধরে পিকআপ করে নিয়ে যাচ্ছে। পরে স্থানীয়রা দিঘীর মাছের মালিককে খবর দিলে সে ঘটনাস্থালে আসার পূর্বেই চুরের দল পুকুরে মাছ ধরার জালটি ফেলেই পালিয়ে যায়। পরে দিঘীতে মাছ চাষকারী নোয়াব মিয়া উল্লেখিত ব্যাক্তিদের নামে শনিবার বুড়িচং থানায় মামলা দায়ের করে। মামলা নং ১০।

মামলার প্রেক্ষিতে বুড়িচং থানার এস আই পুস্প বরণ চাকমা দিঘীতে তল্লাসী চালিয়ে চুরের দলের ফেলে যাওয়া প্রায় ২শ’ ফুট লম্বা একটি মাছ ধরার জাল উদ্ধার করে। এ বিষয়ে দিঘীতে মাছ চাষকারী নোয়াব মিয়া জানান চুরের দল দিঘী থেকে বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় ৫০/৬০ মণ মাছ, যার মূল্য প্রায় ৫ লক্ষাধিক টাকা।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: