নিজস্ব প্রতিবেদকঃ কুমিল্লা জেলার ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ সোনার বাংলা বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে বিজয়ের মাস ডিসেম্বরে বীর মুক্তিযোদ্ধার কন্ঠে মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহাসিক ঘটনাবলী এবং যুদ্ধকালীন বীরত্বের বর্ণনামূলক বক্তব্য নিয়ে বীরের কন্ঠে বীর কাহিনী শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয় এবং মুক্তিযুদ্ধের আলোকচিত্র প্রদর্শনী উদ্বোধন করা হয়।

বিজ্ঞাপন

মহান মুক্তিযুদ্ধের বীর সেনানী বীর প্রতীক খেতাবপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা সুবেদার অবসরপ্রাপ্ত আবদুল ওহাব প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত থেকে শতশত শিক্ষার্থীর সামনে যুদ্ধদিনের গৌরবময় স্মৃতিকথা উপস্থাপন করেন। কলেজের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ আবু ছালেক মোঃ সেলিম রেজা সৌরভ এর সভাপতিত্বে কলেজ মিলনায়তন শ্যামলিমায় অনুষ্ঠিত এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বুড়িচং উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইমরুল হাসান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মহান মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক মোঃ আবদুর রশিদ এবং বুড়িচং উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ শহীদুল করিম।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং অতিথিবৃন্দকে ফুলেল শুভেচ্ছা জ্ঞাপনকরে বরণ করে নেওয়া হয়। প্রধান আলোচক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল ওহাব বীর প্রতীক মুক্তিযুদ্ধকালে বুড়িচং উপজেলার পারুয়ারা ব্রীজ, নরসিংদীর আমীরগন্জ ব্রীজ উড়িয়ে দেয়া, কুমিল্লা বিমানবন্দর অচল করে দেয়া, ফেনীর পরশুরাম এবং কুমিল্লার আখাউড়ার যুদ্ধের লোমহর্ষক বর্ণনা দেন। তিনি অসীম সাহসিকতার সাথে বীর মুক্তিযোদ্ধা দুলা মিয়াকে শক্রবাহিনীর হাত থেকে উদ্ধারের মাধ্যমে বীর প্রতীক খেতাবপ্রাপ্তির ঘটনা বর্ণনা করেন।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন প্রভাষক মাসুদ পারভেজ, মিজানুর রহমান, মাকসুদা বেগম এবং জাফর সাদেক পলাশ। শেষ পর্বে অতিথিবৃন্দের হাতে এহতেশাম হায়দার চৌধুরী লিখিত এবং সেলিম রেজা সৌরভ সম্পাদিত মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসভিত্তিক গ্রন্থ স্বাধীনতা আমার স্বাধীনতা উপহার হিসেবে তুলে দেন অধ্যক্ষ সেলিম রেজা সৌরভ।

মহান মুক্তিযুদ্ধের একশ’টি আলোকচিত্র নিয়ে সাজানো আলোকচিত্র প্রদর্শনীটি আগামী পনেরো দিন পর্যন্ত দর্শকদের জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: