কুমিল্লার গোমতীনদীতে ভেসে যাচ্ছিলো মাটির পাতিল। শিশুরা কৌতূহলী হয়ে তীর তুলে আনে মাটির পাতিল। পাতিল ভেঙ্গে ভয়ে দৌড় দেয়। পাতিলের ভেতর কাপড় দিয়ে মোড়ানো ছিলো এক নবজাতকের লাশ।

গোমতীর টিক্কারচর এলাকার সিয়াম, শাওন ও রোহান নামে তিনজন শিশু জানায়, বেলা বারোটায় একজন পুরুষ ও একজন নারী নদীতে একটি মাটির পাতিল ফেলে দেয়। পরে ওই নারী ও পুরুষ চলে গেলে তারা মাটির পাতিলটি তীরে নিয়ে আসে। পরে মাটির পাতিল ভেঙ্গে দেখে একটি সদ্য ভূমিষ্ট হওয়া নবজাতকের ( কন্যা) লাশ।

পরে এ ঘটনা দেখতে আশেপাশের মানুষজন ভীড় করতে থাকে। উপস্থিত নারীরা এমন জঘণ্য কাজের ধিক্কার জানায়।

ক্ষোভ ও ঘৃণা প্রকাশ করে ওই এলাকার এক গৃহবধূ আসমা জানান, কত মাইনষের পোলা মাইয়া অয় না, আর এই মাইয়াডারে কোন অভাগা বাপ মা হালাইয়া গেলো। আহারে কত সুন্দর মাইয়াডা। ঠিক পরীর মতন।

এদিকে ওই এলাকার শিশু কিশোরা মিলে নদীর চরে নবজাতকের লাশটি মাটি চাপা দেয়ার প্রস্তুতি নেয়। তবে স্থানীয় মুরুব্বিরা বাঁধা দেন। তারা বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করতে বলেন।

এদিকে নবজাতকের লাশ পাওয়ার ঘটনার বিষয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সদর (সার্কেল) সোহান সরকার জানান, আমরা ঘটনাস্থলে ফোর্স পাঠিয়েছি। এ বিষয়ে বিস্তারিত পরে জানাবো।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: