ফাইল ফটো

চলমান করোনা পরিস্থিতিতে হাসপাতালের শহর কুমিল্লা এখন ডাক্তারশূন্য হয়ে পড়েছে। বন্ধ রয়েছে অধিকাংশ হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলো। এতে চিকিৎসার অভাবে চরম ভোগান্তিতে শত শত মুমূর্ষু রোগীরা। সাধারণ থেকে জটিল রোগে আক্রান্ত রোগীরা একাধিক হাসপাতাল ঘুরেও চিকিৎসকদের দেখা পাচ্ছে না।

বিজ্ঞাপন

কুমিল্লায় আগের মতো বিভিন্ন রোগের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের রুমের সামনে রোগী ও তার স্বজনদের ভিড় নেই। দরজায় দরজায় তালা ঝুলছে। হুইল চেয়ার এবং ট্রলির আওয়াজ নেই। নেই সাড়া শব্দ। চারদিকে যেন সুনসান নীরবতা। চিকিৎসাসেবা প্রতিষ্ঠানগুলো চিকিৎসকের অভাবে বন্ধ হয়ে গেছে। ডাক্তার এবং রোগীশূন্য। চার ভাগের তিনভাগ চিকিৎসকের দরজা তালাবদ্ধ। অধিকাংশ চিকিৎসকরা ঘোষণা না দিয়েই করোনা আতঙ্কে রোগী দেখছেন না।

করোনা দুর্যোগে চিকিৎসকরা চেম্বারে থেকে রোগীদের সেবা না দেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে কুমিল্লার সিভিল সার্জন জানান, ডাক্তারদের একাধিকবার অনুরোধ করা হয়েছে করোনার এই দুর্যোগে অসুস্থ মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য। আহ্বান করা হয়েছে চেম্বারে ফিরে আসার জন্য। যেন সাধারণ মানুষ ও রোগীদের ভোগান্তি ও দুর্ভোগে না পড়েন।

কুমিল্লার জেলা-উপজেলায় ছোট-বড় পাঁচ শতাধিক বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার রয়েছে। এইসব চিকিৎসাকেন্দ্রে নিয়মিত ডাক্তারদের না পেয়ে নগর, মহানগর, গ্রামগঞ্জের সাধারণ মানুষ ও রোগীরা পড়েছেন দুর্ভোগে।

সূত্রঃ আরটিভি

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: