বিয়ে বাড়ির প্রায় সব আয়োজন শেষ। আর মাত্র কয়েক ঘণ্টা পর আসবেন বর। কিন্তু এর আগেই কনের বাড়িতে গাড়ি নিয়ে হাজির হন ম্যাজিস্ট্রেট। খুলে ফেলা হয় জাঁকজমকভাবে সাজানো গেট। মুহূর্তেই থমকে গেল সব আনন্দ। শুধু রয়ে গেল কনের হাতের মেহেদির রঙ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ঘটনাটি ঘটেছে কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার জাফরগঞ্জ ইউনিয়নের শ্রীপুকুরপাড় গ্রামে। জমকালো বিয়ের আয়োজন বন্ধ করে দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাকিব হাসান ও থানার ওসি মো. আরিফুর রহমান।

স্থানীয়রা জানায়, শ্রীপুকুরপাড় গ্রামের আব্দুল হাকিমের মেয়ে সুমাইয়া আক্তারের সঙ্গে বুড়িচং উপজেলার দেবপুর গ্রামের আব্দুল মজিদের ছেলে আরিফ হোসেনের বিয়ে ঠিক হয়। আগামীকাল শুক্রবার দুপুরে বরযাত্রী আসার কথা রয়েছে। সুমাইয়া পারুয়ারা আব্দুল মতিন খসরু আদর্শ ডিগ্রি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী। আর আরিফ মালয়েশিয়া প্রবাসী।

এ বিষয়ে কনের ভাই মো. সোহেল আহমেদ বলেন, আমাদের তিন ভাইয়ের আদরের একমাত্র ছোট বোন, তাই ভালো বর পেয়ে হাতছাড়া করতে চাইনি। শখের বশে ধুমধাম বিয়ের আয়োজন করি। করোনার কারণে বরযাত্রীসহ শ’খানেক লোকের আমন্ত্রণেই বিয়ে সম্পন্ন করতে চেয়েছিলাম। প্রশাসনের বাধার মুখে এখন ঘরোয়া পরিবেশে বিয়ে সম্পন্ন করে নেব।

দেবিদ্বার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাকিব হাসান বলেন, বিয়েটা শুক্রবার হওয়ার কথা ছিল। এ করোনায় বিয়ের আয়োজনে অতিথি সমাগম না করে দু-পক্ষের কয়েকজনকে নিয়ে বিয়ে সম্পন্ন করার কথা বলে এসেছি। এছাড়া তাদের রান্নার আয়োজন বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: