আগামী ১৪ জুলাই অনুষ্ঠেয় কুমিল্লা-৫ (বুড়িচং-ব্রাহ্মণপাড়া) আসনের উপ-নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রচার-প্রচারণা, ব্যাপক গণসংযোগ আর শোডাউনে মুখর অলিগলি। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত চলছে ভোটারদের দৃষ্টি আকর্ষণের বিভিন্ন মাধ্যম। রাজনৈতিক দলীয় নেতাদের সাথে করে বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে ভোটারদের কাছে যাচ্ছেন প্রার্থীরা। দিচ্ছেন উন্নয়নের নানা প্রতিশ্রুতি।

সদ্য প্রয়াত আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সুপ্রিমকোর্ট বার সভাপতি আব্দুল মতিন খসরু’র শূন্য কুমিল্লা-৫ আসনের উপনির্বাচনে দলীয় প্রার্থী হতে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন দুই ডজনেরও অধিক আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা।

এদের মধ্যে গ্রহণযোগ্যতা ও জনপ্রিয়তায় এগিয়ে রয়েছেন বাংলাদেশ যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সম্পাদক, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ,ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের সহ সভাপতি এহতেশামুল হাসান ভূঁইয়া রুমি।

তরুণ ও ক্লিন ইমেজের কেন্দ্রীয় এই নেতা গত এক মাসের প্রচার ও তফসিল ঘোষণার আগের দিন বিশাল শোডাউনের মাধ্যমে আলোচনায় চলে আসেন। ভোটারও খুঁজছেন সৎ ও যোগ্য প্রার্থী, যারা সুখে দুঃখে তাদের কাছে থাকবেন। তারা বলেন, যাদের মধ্যে দেশপ্রেম আছে তেমন মানুষই প্রতিনিধি হোক। সাধারণ মানুষের কথা যে সংসদে তুলে ধরবে তেমন ব্যক্তিকেই নির্বাচিত করতে চান তারা। আর তাদের মনোমুগ্ধ ও জনপ্রিয় ব্যক্তিটিই যেন এহতেশামুল হাসান ভূইয়া রুমি।

এহতেশামুল হাসান ভূঁইয়া রুমি বলেন, সর্বপ্রথমে শ্রদ্ধার সাথে আমি স্মরণ করছি এ আসনের পাঁচবারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য,বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য, সাবেক সফল আইনমন্ত্রী, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নবনির্বাচিত সভাপতি ও বীরমুক্তিযোদ্ধা জনাব আব্দুল মতিন খসরুকে, তিনিই আমার আদর্শ। তিনিই শিখিয়েছেন রাজনীতিতে জয় পরাজয় থাকবেই, কিন্তু মানুষের ভালবাসার মাঝেও মানুষকে সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে কোন পরাজয় নেই। আমার জন্য মহান আল্লাহতায়ালার নিকট দোয়া করবেন, যেন আমাকে আপনাদের পাশে থাকার শক্তি,সাহস ও সামর্থ দেন।

তিনি আরো বলেন,আমি আপনাদের সবাইকে কথা দিচ্ছি জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে মনোনয়ন দিক বা না দিক আমি সুখে দুঃখে সবসময় আপনাদের পাশে থাকব ইনশাল্লাহ।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: