ডেস্ক রিপোর্টঃ বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) কাভার করতে চট্টগ্রাম এসে পৌঁছালাম বৃহস্পতিবার সকালে। আগে থেকে ঠিক করে রাখা নির্ধারিত হোটেলেই উঠলাম। যেখানে ঢাকা থেকে আসা বেশিরভাগই ক্রীড়া সাংবাদিক উঠেছেন। হোটেলের প্রায় সবারই জানা, বিপিএল কাভার করতেই আমরা ঢাকা থেকে এসেছি।

কাউন্টার থেকে চাবি নিয়ে নিজ রুমে এসে দেখি রুম সার্ভিসের একটা ছেলেও হাজির। রুম গোছানোর কাজ শেষ করেও দেখলাম যাচ্ছে না। জিজ্ঞেস করলাম, ‘কিছু বলবে?’

যেন আশকারা পেয়ে গেল। দ্রুত বলা শুরু করলো, ‘আপনে তো বিপিএলে নিউজ করতে আইছেন? আমারে একটা কুমিল্লার খেলার টিকিট দেন না। আমার বাড়ি কুমিল্লা।’

মৃদু হেসে বললাম, ‘আমি যদি কোনো টিকিট পাই, তাহলে তোমাকেই দেব।’ মনে হলো মনে কষ্ট নিয়েই বিদায় নিল সে।

দীর্ঘভ্রমণের ক্লান্তি ঝেরেই বের হতে হলো। সাংবাদিকদের ক্লান্তি থাকতে নেই। সব দূরে ঠেলে রেখেই বের হয়ে গেলাম। প্রথমেই গেলাম এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে টিকিট বুথে। অবাক হয়ে দেখলাম, সেখানে প্রচুর কুমিল্লা আর রংপুরের সমর্থক। কুমিল্লার সমর্থক চোখে পডার মতোই। একটু অবাকই হতে হলো।

জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম হয়ে সারাদিনের ব্যস্ততা শেষে যখন ফিরছিলাম, তখন দেখলাম স্থানীয় চিটাগংয়ের দল থাকার পরও প্রচুর মানুষের গায়ে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স আর রংপুর রাইডার্সের জার্সি। কারণ চিন্তা করতে করতেই হোটেলের রুমে ঢুকলাম।

রুমে ঢোকার পরই দরজায় আলতো টোকা। দরজা খুলতেই দেখি, সকালের সেই ছেলেটা। সাথে আরও নতুন দুই মুখ। সবার আবদার কুমিল্লার ম্যাচের টিকিট! একটু হতাশার হাসি হেসেই বললাম, ‘আমার চিটাগংয়ে পরিচিত কেউ নেই। যদি টিকিট পাই তোমাদেরকেই দেব।’

এরপর রুমে ঢুকেই চিন্তা করতে করলাম চিটাগং ভাইকিংস থাকার পরও এ শহরে কেন অন্য দুই দলের এত সমর্থক! প্রথমেই যে বিষয়টা মাথায় আসলো সেটা হলো, চিটাগং ভাইকিংসের মালিকানা! এখানে আসার পর স্থানীয় মানুষের মুখে যেটা সবচেয়ে বেশি শুনলাম তা হলো- চিটাগং ভাইকিংসের মালিক তো চট্টগ্রামেরই না! এই একটা কারণে বিশাল একটা অংশের সমর্থন হারাচ্ছে চিটাগং।

দ্বিতীয় কারণ চিটাগংয়ের ঘরের ছেলে তামিম ইকবাল নেই দলে। তার দল এবার কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। সেদিক থেকেও চিটাগংয়ের মানুষের কুমিল্লাকে সমর্থন দেয়ার বিশাল একটা কারণ।

আরও একটা কারণ আছে, কুমিল্লা থেকে চিটাগংয়ের দূরত্ব খুব একটা বেশি না হওয়াতে এ নগরে প্রচুর কুমিল্লার মানুষ জীবিকার সন্ধানে আসে। কিংবা শুধু খেলা দেখার জন্যও আসতে পারে। এ কারণেও এখানে কুমিল্লার এত সমর্থক।

এরপর আসা যাক অন্য দলটিতে। কুমিল্লার না হয় কিছু কারণ যৌক্তিক। কিন্তু রংপুরের অত সমর্থক তাহলে আসল কোত্থেকে? আসলে এই কারণটাও সহজ। রংপুরকে সমর্থন করার মতো মানুষের অনেকগুলো কারণ লাগে না, মাত্র একটাই যথেষ্ট। এই দলটির অধিনায়ক যে মাশরাফি বিন মর্তুজা!

(একজন ক্রীড়া সাংবাদিকের লেখা এটি)

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: