কুমিল্লা জেলার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলায় ১৩ বছরের এক কিশোরীকে এসিড নিক্ষেপ করেছে এক বখাটে যুবক। পুলিশ ওই যুবককে গ্রেপ্তার করে কুমিল্লা জেল হাজতে প্রেরন করেছে।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার শশীদল ইউনিয়নের বাগড়া নোয়াপাড়া গ্রামে বাগড়া-কুমিল্লা সড়কের পূর্ব পাশে মোঃ হোসেন মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থাকত কসবা উপজেলার নয়নপুর গ্রামের মোখলেছ মিয়া ও তার পরিবার ।

গত বৃহস্পতিবার রাতে মোখলেছ মিয়া, তার স্ত্রী, মেয়ে খাদিজা আক্তার মনি (১৩) ও ছোট ছেলেকে নিয়ে ঘুমিয়ে পড়ে। রাত আনুমানিক ১১টায় মনির চিৎকার শুনে পরিবারের লোকজন দেখতে পায় কে বা কারা মনিকে লক্ষ করে ঘরের জালানা দিয়ে এসিড নিক্ষেপ করে পালিয়ে গেছে। এসিডে মনির মুখসহ শরীরের বিভিন্ন স্থান ঝলসে গেছে। তাৎক্ষণিক তাকে উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। খবর পেয়ে ওই দিন রাতেই পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিবারের লোকজন ও এলাকাসীকে ব্যাপক জিজ্ঞেসাবাদ করে। পরদিন আহত মনির বাবা বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামী করে থানার এসিড অপরাধ দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করে। পুলিশের ব্যাপক তৎপরতায় শনিবার রাতে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এলাকা থেকে চট্রগ্রাম ডবলমুড়িং থানার মৃত ফজলুল হকের ছেলে রংমিস্ত্রি মোঃ হারুন(৩১)কে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ । তাকে ব্যাপক জিজ্ঞেসাবাদে সে এসিড নিক্ষেপের কথা স্বীকার করে। কেন এ কাজ করেছে জানতে চাওয়া হলে হারুন জানায়, তার সাথে মনির প্রেমের সম্পর্ক ছিল। ইদানীং মনি তাকে এড়িয়ে চলছিল সে কারনেই সে রাগে এ কাজ করেছে।

থানার অফিসার ইনচার্জ আজম উদ্দিন মাহমুদ এ প্রতিনিধিকে বলেন, গ্রেফতারকৃত হারুন ম্যাজিষ্ট্রেটের নিকট তার অপরাধ স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে। আহত মনির শরীরের বিভিন্ন অংশে ঝলসে গেছে। বর্তমানে সে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে। আমি তাকে দেখতে গিয়েছিলাম। তার শারীরিক অবস্থা কিছুটা উন্নতির দিকে। আসামীকে কোর্টের মাধ্যমে কুমিল্লা জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: