কুমিল্লার লাকসামে জনৈক প্রতিবন্ধী কিশোরকে মারধর ও বসতঘর ভাঙচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার উত্তরদা ইউনিয়নের রামপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। এ বিষয়ে ওই প্রতিবন্ধী কিশোরের পিতা বাদী হয়ে লাকসাম থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ৯ মার্চ রাত ৯টায় রামপুর গ্রামের মৃত আলী নোয়াব খানের ছেলে মোঃ শহিদ খানের সাথে লেনদেন সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে একই বাড়ির মৃত রজ্জব আলীর ছেলে মতলব খানের বাকবিতন্ডা হয়। একপর্যায়ে মতলব খান ক্ষিপ্ত হয়ে শহিদ খানকে লোহার টর্চ লাইট দিয়ে বেধড়ক মারধর করে। এসময় তিনি পালিয়ে গেলে মতলব খান তার ছেলে এমরান খানকে নিয়ে শহিদ খানের বাড়িতে হামলা চালায়। তারা পিতা-পুত্র মিলে ধারালো অস্ত্র দিয়ে শহিদ খানের ঘর ভাঙচুর শুরু করলে বাক প্রতিবন্ধী ছেলে মুরাদকে ঘরে রেখে তার স্ত্রী পালিয়ে যান। ঘর ভাঙচুর শেষে হামলাকারীরা প্রতিবন্ধী মুরাদকে বেধড়ক মারধর করে। এসময় তার চেঁচামেচি শুনে বাড়ির অন্যান্যরা ছুটে এলে হামলাকারীরা তাদেরকেও মারধর করে।

এ বিষয়ে মোবাইল ফোনে জানতে চাইলে অভিযুক্ত মতলব খান ব্যস্ততা দেখিয়ে কল কেটে দেন। লাকসাম থানা পুলিশের সহকারী উপ-পরিদর্শক রাজিব হোসেন বলেন, ‘অভিযোগ পেয়ে আমরা তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে অভিযোগের সত্যতা তদন্ত করেছি। এ বিষয় নিয়ে সামাজিক ভাবে মীমাংসার কথা বলেছেন স্থানীয় সমাজপতিরা। মীমাংসা না হলে আমরা আইনানুগ ব্যবস্থা নেবো।’

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: