আওয়ামী লীগের ৭ প্রার্থীর দৌড়ঝাঁপ আসন পুনরুদ্ধারের চেষ্টায় বিএনপি

ডেইলিকুমিল্লানিউজ ডেস্কঃ কুমিল্লার সর্বত্রই এখন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আমেজ বইতে শুরু করেছে। রাজনৈতিক সভা-সেমিনারে নেতাদের বক্তব্যই বলে দিচ্ছে জাতীয় নির্বাচন আসছে। বর্তমানে রাজপথের বিরোধীদল বিএনপি অনেকটা কৌশলী হয়ে নিরবে নির্বাচনী মাঠ গোছানো শুরু করেছে। বিএনপি নেতাদের মাঝে এখনো হামলা-মামলার আতঙ্ক কাজ করছে। তাই তারা আগামী সংসদ নির্বাচন নিয়ে মাঠ পর্যায়ে না নামলেও কোন আসনে কে প্রার্থী হবেন তা অনেকটা দলীয় হাইকমান্ড থেকে গ্রীণসিগন্যাল দেয়া রয়েছে বলে দলীয় সুত্রে জানা গেছে। অন্যদিকে আগামী সংসদ নির্বাচন নিয়ে আওয়ামীলীগ প্রকাশ্যেই প্রচারণার ডামাঢোলে নেমেছে। সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ডের ফিরিস্তি তুলে ধরা হচ্ছে জনসন্মুখে। জাতীয় পার্টির মনোনয়ন প্রত্যাশিরাই বসে নেই।

কুমিল্লা-১ সংসদীয় আসনে মনোনয়ন পেতে আওয়ামীলীগের অনেকে এখন থেকেই লবিং শুরু করেছেন। এ আসনে আওয়ামীলীগের এমপি মেজর জেনারেল (অব.) সুবিদ আলী ভূঁইয়া ছাড়াও দাউদকান্দি ও মেঘনা আওয়ামীলীগের অন্তত ছয় নেতা মনোনয়ন প্রত্যাশির খাতায় নাম উঠিয়েছেন। দাউদকান্দি উপজেলার ১৫টি ইউনিয়ন ও মেঘনা উপজেলার আটটি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত কুমিল্লা-১ সংসদীয় আসনে ২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির টানা চারবারের নির্বাচিত এমপি ও মন্ত্রী ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেনকে ২০ হাজার ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করে জয়লাভ করেন আওয়ামীলীগের প্রার্থী মেজর জেনারেল (অব.) সুবিদ আলী ভূঁইয়া। ১৯৭৩ সালের পর এ আসনে আওয়ামীলীগের কোন প্রার্থী জয়লাভ করতে পারেনি। ৩৪ বছর পর সুবিদ আলী ভূঁইয়া দাউদকান্দিতে আওয়ামীলীগের হারানো আসন পুনরুদ্ধার করেন। ২০১৪ সালে দশম জাতীয় নির্বাচনে তিনি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় দ্বিতীয়বারের মতো এমপি নির্বাচিত হন। গত ৯বছরে দাউদকান্দি ও মেঘনায় যোগাযোগ ব্যবস্থাসহ অবকাঠামোগত উন্নয়ন হয়েছে। নির্বাচনী প্রতিশ্রুতির অনেকটাই বাস্তবায়ন করেছেন। তবে দাউদকান্দি ও মেঘনার আইন শৃংখলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটেছে।
কুমিল্লার ১১টি সংসদীয় আসনের মধ্যে দাউদকান্দি ও মেঘনা নিয়ে গঠিত আসনটি বিভিন্ন দিক থেকে গুরুত্বপূর্ণ। আর তাই হেভিওয়েটরাই এখানে প্রার্থী হওয়ার জন্য উন্মুখ হয়ে থাকেন। বর্তমান এমপি সুবিদ আলী ভূইয়া আগামী নির্বাচনে আওয়ামীলীগের টিকেট পাবেন বলে দলের নেতাকর্মীরা নিশ্চিত। তবে সাংগঠনিক সমন্বয়হীনতার কারণে দাউদকান্দি ও মেঘনায় এমপির সঙ্গে তৃণমুল নেতা-কর্মীদের দুরত্ব বেড়েছে। দাউদকান্দি উপজেলা আওয়ামীলীগে এমপি অনুসারি দুইজনই সাধারণ সম্পাদকের পদ ব্যবহার করছেন। দলের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে আগামী নির্বাচনে আওয়ামীলীগ থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশী হিসেবে রয়েছেন বর্তমান এমপি মেজর (অব.) সুবিদ আলী ভূইয়া, কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বাদল রায়, কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্য সম্পাদক বিশিষ্ট শিল্পপতি বশিরুল আলম মিয়াজী, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আবদুস সবুর, কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও হামদর্দ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. আব্দুল মান্নান জয়, আওয়ামী লীগনেতা ব্যারিস্টার নাঈম হাসান ও মেঘনা উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি শফিকুল ইসলাম।
বাঁ থেকে: মেজর (অবঃ) সুবিদ আলী ভূইয়া, অধ্যাপক ড.আব্দুল মান্নান জয়, ইঞ্জিনিয়ার আবদুস সবুর, বাদল রায়, বশিরুল আলম মিয়াজী, ব্যারিস্টার নাঈম হাসান
এদিকে মেঘনা উপজেলা বিএনপিতে দলীয় কোন্দল থাকলেও দাউদকান্দিতে দলটি গ্রুপিং মুক্ত। কুমিল্লা-১ আসনে বিএনপির সাবেক এমপি ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেনের বিকল্প নেতৃত্ব সৃষ্টি না হওয়ায় আগামী নির্বাচনে তিনিই দলের মনোনয়ন পাবেন বলে দুই উপজেলার নেতাকর্মীরাই শতভাগ আশাবাদী। অন্যদিকে জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা আবু জায়েদ আল মাহমুদ ওরফে মাখন সরকার, জাপা নেতা সুলতান আহমেদ জিসান, আবদুল কাদের জুয়েল আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে মাঠ পর্যায়ে সাধারণ ভোটার ও নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় করে যাচ্ছেন। জাতীয়পার্টি যদি আগামীতে আওয়ামীলীগের জোটে না থাকে তাহলে পার্টির ওইসব নেতারা কুমিল্লা-১ আসনের জন্য পার্টির প্রেসিডেন্ট হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের কাছে মনোনয়ন চাইবেন।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন:

ভালো লাগলে শেয়ার করুনঃ