বাবার মৃত্যুর পর কাজের সন্ধানে কুমিল্লায় খালুর বাড়িতে এসে খালুর অব্যাহত ধ’র্ষণে ৪ মাসের অন্তঃস’ত্ত্বা হয়ে পড়েছে ভাগ্নি। এ ঘটনায় পুলিশ মেয়েটির খালু আবুল হাসেমকে গ্রেফতার করেছে। সোমবার নগরীর সংরাইশ এলাকা থেকে তাকে গ্রে’ফতার করে পুলিশ। বিকেলে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়ার পর তাকে জেলহাজতে পাঠানো হয়।

আবুল হাসেম জেলার চান্দিনা উপজেলার কুটুম্বপুর গ্রামের জয়নাল আবেদীনের ছেলে। তিনি নগরীর সংরাইশ এলাকার একটি বাসায় পরিবার নিয়ে ভাড়া থাকেন। ধ’র্ষক ওই কিশোরীর আপন খালু।

মামলার অভিযোগে জানা যায়, ধ’র্ষিতা ওই কিশোরীর বাবা মা’রা যাওয়ার পর কাজের সন্ধানে সে তার খালু আবুল হাসেমের বাড়িতে আসে। সেখানে থেকে সে কুমিল্লা ইপিজেডের একটি কারখানায় শ্রমিকের কাজ করে আসছিল। গত বছরের ৩০ অক্টোবর সন্ধ্যায় ইপিজেডে কাজ শেষে বাসায় ফেরার পর আবুল হাসেম তাকে নানাভাবে ভয় দেখিয়ে ধ’র্ষণ করে এবং বিষয়টি কাউকে জানালে তার খালা এবং বাকপ্রতিবন্ধী মাকে মে’রে ফেলবে বলে হুমকি দেয়। এরপর থেকে আবুল হাসেম বিভিন্ন সময়ে তাকে ধ’র্ষণ করে আসছিল।

সর্বশেষ গত ১৫ ফেব্রুয়ারি তাকে ধ’র্ষণ করে। বর্তমানে ওই কিশোরী ৪ মাসের অ’ন্তঃসত্ত্বা বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়।

এদিকে এ ঘটনায় ধ’র্ষিতা ওই কিশোরী বাদী হয়ে আবুল হাসেমকে আসামি করে সোমবার কুমিল্লা কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় সোমবার সকালে আবুল হাসেমকে গ্রে’ফতার করা হয়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. সুমন মিয়া জানান, আসামি আবুল হাসেম কুমিল্লা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ইরফানুল হক চৌধুরীর আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। পরে তাকে জেলহাজতে পাঠানো হয়।