কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কের বুড়িচং উপজেলার হরিণধারা বিদ্যুৎ প্রকল্প এলাকার সামনে রোববার বেলা সাড়ে ১১ টায় ট্রাক-লেগুনায় মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে দু’সহোদর ভাই-বোনসহ ৩ জন ঘটনাস্থলে ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে একজনসহ ৪জন নিহত ও কমপক্ষে ১০ জন গুরুতর আহত হয়।

হাইওয়ে পুলিশ ও স্থানীয় জানান, জেলার বুড়িচং উপজেলার ময়নামতি ইউনিয়নের হরিণধরা বি্যুৎ প্রকপ্লের সামনে গতকাল রোববার বেলা সাড়ে ১১ টায় চট্টগ্রাম থেকে সিলেটগামী একটি দ্রুতগতির লবন বোঝাই ট্রাক মুরাদনগরের কোম্পানীগঞ্জ থেকে ময়নামতি সেনানিবাসগামী যাত্রী বোঝাই একটি লেগুনার মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই লেগুনার যাত্রী আপন দু’ভাই-বোন বুড়িচং উপজেলার পীরযাত্রাপুর ইউনিয়নের গোবিন্দপুর দক্ষিণ পাড়া ভূইয়া বাড়ির নবী নেওয়াজ ভূইয়ার প্রবাস ফেরত ছেলে বিল্লাল হোসেন (৩৫) ও লিপি আক্তার (৪০)সহ ৩ জন নিহত হয়। আহতদের হাসপাতালে নেওয়ার পথে আরো একজনেরসহ ৪ জন নিহত হন। অন্যরা হলেন,লেগুনার সহকারী মুরাদনগরের ছালিয়াকান্দি গ্রামের আলি মিয়ার ছেলে সাজিদ(১৫) ও দেবিদ্বারের হোসেনপুর গ্রামের মৃত বিপিন চন্দ্র সাহার ছেলে সাধন চন্দ্র সাহা (৫০)।

প্রত্যক্ষদর্র্শী জসিম,কবিরসহ একাধিক ব্যক্তি জানান, দু’টি গাড়িই বেপরোয়া গতিতে চালাচ্ছিল। একসময় ট্রাকটি ওভারটেক করার সময় লেগুনার সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ বাধেঁ। ট্রাকের চাঁপায় এসময় লেগুনাটি দুমরে-মুচড়ে যায়। দুর্ঘটনায় এ সময় ঘটনাস্থলে তিনজন নিহত হয়।

দুর্ঘটনার পরপরই স্থানীয় ও পথচারীরা এসে আহতদের উদ্ধার করে প্রথমে ময়নামতি সেনানিবাস এলাকায় জেনারেল হাসপাতাল ও পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ৩ জনকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

কুমিল্লা হাইওয়ে পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোল্লা মোহাম্মদ শাহিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, বেলা ১১ টায় সিলেটগামী একটি ট্রাকের সাথে একটি লেগুনার সংঘর্ষ হয়। দূর্ঘটনায় স্থলে ২ জন নিহত হয়। হাসপাতালে নেয়ার পথে আরো দু’জন নিহত হয়। নিহতের মধ্যে একজন নারী ও ৩ জন পুরুষ রয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত ১০ জন। ঘটনার পরপরই ট্রাক চালক পালিয়ে যায়।

কুমিল্লা ময়নামতি থানার অফিসার ইনচার্জ সাফায়েত হোসেন জানান, ট্রাক ও লেগুনা জব্দ করে থানায় নেয়া হয়েছে। এব্যাপারে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: