কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলায় ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে এলাকার লোকজনের জন্য ত্রাণ চাওয়ায় চেয়ারম্যান ও তার লোকজন কর্তৃক নির্যাতনের শিকার আশেকে এলাহীকে এবার এলাকা ছাড়ার হুমকি দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন।

বিজ্ঞাপন

রোববার (৭ জুন) দুপরে কুমিল্লা নগরীতে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আশেকে এলাহী এ অভিযোগ করেন। উপজেলার গুনাইঘর দক্ষিণ ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হাকিম খাঁন ও তার লোকজনের নির্মম নির্যাতন, বাড়ি-ঘরে হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ফিরিস্তি তুলে ধরে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কাছে ন্যায়বিচার এবং পুরো ঘটনার তদন্ত দাবি করে বিচার চান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি অভিযোগ করে বলেন, ৩০ মে রাতে আমাকে মারধর ও বাড়িঘরে হামলা এবং আগুন দেয়ার ঘটনা ঘটলেও থানায় মামলা দিতে গেলে ওসি অভিযোগ গ্রহণ না করে থানা থেকে বের করে দেন। আমাকে সহায়তাকারী উপজেলার মাশিকাড়া গ্রামের লোকজনকে পুলিশি হয়রানি করা হয়। সিএনজি ও অটোরিকশা নিয়ে উপজেলা সদরে যেতে আমাদের বাধা দিচ্ছে চেয়ারম্যানের লোকজন।

তিনি আরও বলেন, এর আগে এলাকাবাসীর জন্য ত্রাণের তালিকা দেয়ার অপরাধে ১১ এপ্রিল চেয়ারম্যান গ্রাম পুলিশ দিয়ে আমাকে বাড়ি থেকে পরিষদে ডেকে নিয়ে আটকে রেখে মারধর করেন। এ নিয়ে সংবাদ মাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়। পরে জেলা প্রশাসনের নির্দেশে উপজেলা প্রশাসন তদন্ত কমিটি গঠন করে। কিন্তু সেই তদন্তে আমি ন্যায়বিচার পাইনি। এজন্য পুনরায় ঘটনার তদন্ত চাই। একই সঙ্গে এসব ঘটনার বিচার চাই।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন মাশিকাড়া গ্রামের মামনুর রশিদ, আবুল হাসেম, খোরশেদ আলম, অহিদুর রহমান, মজিবুর রহমান ও রমিজ মিয়াসহ অনেকে ।

সূত্রঃ পূর্বপশ্চিমবিডি

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: