হালিম সৈকতঃ কুমিল্লায় যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়েছে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১১৯তম জন্মবার্ষিকী। এই বিষয়ে কুমিল্লা জেলা প্রশাসন তিনদিন ব্যাপি অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করা হয়েছে। ২৪ মে ২০১৮ইং সকাল ১০টায় কবি নজরুল ইন্সটিটিউট কেন্দ্র কুমিল্লায় আয়োজন করা হয় সকল ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে সঙ্গীত, নৃত্য ও আবৃত্তি প্রতিযোগিতার।

দ্বিতীয় দিন ২৫ মে সকাল ১০টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমী প্রাঙ্গণে অবস্থিত চেতনায় নজরুল ম্যূরালে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন জেলা প্রশাসক আবুল ফজল মীরের নেতৃত্বে। এরপরে জেলা শিল্পকলা একাডেমী মিলতায়নে অনুষ্ঠিত হয় “জাতীয় জাগরণে কবি নজরুল” প্রতিপাদ্য বিষয় নিয়ে আলোচনা সভা, পুরষ্কার বিতরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের।

এই পর্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক মো. আবুল ফজল মীর। সভাপতিত্ব করেন শিক্ষাবিদ প্রফেসর মো. আমির আলী চৌধুরী। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থি ছিলেন পুলিশ সুপার মো. শাহ আবিদ হোসেন, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান এড. মো. আমিনুল ইসলাম টুটুল, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট কুমিল্লার সভাপতি নারী নেত্রী পাপড়ি বসু।

আলোচক হিসেবে উপিস্থত ছিলেন নজরুল গবেষক প্রফেসর ড. আলী হোসেন চৌধুরী, প্রফেসর শান্তি রঞ্জন ভৌমিক এবং মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের বাংলা বিভাগের সাবেক অধ্যাপক আনোয়ারুল হক। উপস্থাপনা করেন জেলা কালচারাল অফিসার সৈয়দ আয়াত মাবুদ। একমাত্র আমন্ত্রিত আবৃত্তি শিল্পী হিসেবে নজরুলের বিভিন্ন কবিতা আবৃত্তি করেন বাংলাদেশ আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক (কুমিল্লা অঞ্চল) ও কন্ঠের জাদুকর হিসেবে খ্যাত আবৃত্তি শিল্পী কাজী মাহতাব সুমন। কবি তীর্থ মুরাদনগরের দৌলতপুরে ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে অনুষ্ঠিত হয় সঙ্গীত, নৃত্য ও আবৃত্তি প্রতিযোগিতা।

আগামী দিন শনিবার ২৬ মে ২০১৮ইং মুরাদনগরের দৌলতপুরে অনুষ্ঠিত হবে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এছাড়াও কুমিল্লার বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো আয়োজন করেছে নানা অনুষ্ঠানমালার এবং বিভিন্ন প্রকাশনা।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: