মাত্র ২৫ দিন আগে ছুটিতে বাহরাইন থেকে দেশে এসেছেন। দেশে এসে মোটরসাইকেল চালানো শিখেছেন ১০ দিন হলো। প্রিয়তমা স্ত্রীকে নিয়ে মোটরসাইকেলে করে রওনা দিয়েছেন শ্বশুরবাড়ি। নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মোটরসাইকেল রাস্তায় পড়ে যাওয়ার আগ মুহূর্তে পেছন থেকে আরেকটি মোটরসাইকেল তাদের সজোরে ধাক্কা দেয়। ফলে সড়ক থেকে ছিটকে গাড়ি চলে যায় জমিতে। মারাত্মক আহত স্বামী স্ত্রীকে উদ্ধার করে ভর্তি করা হয় লাকসাম হাসপাতালে। পরে অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা নেয়ার পথে শুক্রবার রাতে মারা যান প্রবাসী এমরান হোসেন। স্ত্রী মিম এখনো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

নিহত এমরান কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার ২ নম্বর পেরিয়া ইউনিয়নের উত্তর শাকতলী গ্রামের মুন্সিবাড়ির মোহাম্মদ আবুল কাশের ছেলে। এমরানের চাচাত ভাই মোহাম্মদ রাসেল শনিবার সকালে এ কথা নিশ্চিত করেছেন।

নিহতের স্বজনরা জানান, শুক্রবার বিকেল ৫টা ২০ মিনিটের সময় প্রবাসী এমরান সস্ত্রীক উপজেলার নরপাটিস্থ শ্বশুরবাড়িতে যাওয়ার পথে স্থানীয় জোড় খেজুর গাছ তলায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় পতিত হয়। তারা মোটরসাইকেল থেকে পড়ে যাওয়ার পর মুহূর্তের মধ্যে পেছন থেকে আরেকটি দ্রুতগামী মোটরসাইকেল এসে তাদেরকে ধাক্কা দেয়।

এতে তারা গুরুতর আহত হন। আহত স্বামী-স্ত্রীকে প্রথমে লাকসাম জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসা হয় । পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়।

রোগীর অবস্থা আরো অবনতি হলে রাতেই তাকে আরো উন্নত চেকিৎসার জন্য ঢাকায় নেয়ার পথে চান্দিনা নামক স্থানে রাত পোনে ২টায় মারা যায় প্রবাসী এমরান।

নিহত এমরান আবুল কাশেমের তিন ছেলে ও চার মেয়ের মধ্যে পঞ্চম সন্তান ছিলেন। বিয়ে করেই বাহরাইন চলে যায় এমরান। দুই বছর পর গত ২৫ দিন আগে দেশে আসে সে। তার মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: