মাহদী হাসানঃ যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজে দিনব্যাপী আয়োজনে ৪৮তম বিজয় দিবস উদযাপন করা হয়।

ভোর ৬ টা ৩০ মি. কলেজে শ্বেত পাথরের তৈরি স্মৃতিসৌধ, শহীদ মিনার, টাউনহল কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার, নগর উদ্যানে অবস্থিত বঙ্গবন্ধু ম্যুরাল, সকাল ৭ টা ৩০মি. এ কলেজের ডিগ্রি শাখায় স্থাপিত শহীদ মিনার ও হৃদয়ে বঙ্গবন্ধু ম্যুরালে পুষ্পস্তবক অর্পণের মধ্যদিয়ে বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের শ্রদ্ধা জানান ভিক্টোরিয়া কলেজ পরিবার ।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর রুহুল আমিন ভূইঁয়া, উপাধ্যক্ষ প্রফেসর ড.আবু জাফর খান, শিক্ষক পরিষদ সম্পাদক প্রফেসর বিজয় কৃষ্ণ রায়সহ সকল শিক্ষক, শিক্ষার্থীবৃন্দ ও কর্মচারীবৃন্দ। এছাড়াও কলেজ ছাত্রলীগ ও বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ জাতির জনকের স্মৃতিস্তম্ভে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ করেন।

এরপর-ই ভিক্টোরিয়া কলেজের দ্বি-মাসিক সৃজনশীল মুখপত্র ক্যাম্পাস বার্তার উদ্যোগে প্রকাশিত বিজয়ের দেয়ালিকা ‘অপরাজেয়’ এর মোড়ক উন্মোচন করেন কলেজ অধ্যক্ষ।

দিনব্যাপী কার্যক্রমের অংশ হিসেবে সকাল ৯ টায় উচ্চ মাধ্যমিক শাখা মাঠে শিক্ষকবৃন্দের অংশগ্রহণে ঝুড়িতে বল নিক্ষেপ, মিউজিক্যাল চেয়ার, একটি আন্তঃশিক্ষক প্রীতি ক্রিকেট ম্যাচ আয়োজন করা হয় এতে অধ্যক্ষ মহোদয়ের দল প্রতিপক্ষ উপাধ্যক্ষ মহোদয়ের দলকে দুই রানে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন ট্রফি জিতে নেয়। এছাড়াও কর্মচারীদের অংশগ্রহণে কাবাডি প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

পরবর্তীতে কলেজ অধ্যক্ষের নেতৃত্বে কলেজের সকল শিক্ষকগণ উচ্চমাধ্যমিক শাখায় অবস্থিত “বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ কর্নার” পরিদর্শন, শহীদদের স্মরণ ও স্থাপনাটিকে আরও সমৃদ্ধ করে তুলতে ভবিষ্যৎ করণীয় বিষয়ে পরামর্শ করেন।

১১ টায় কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর রুহুল আমিন ভূঁইয়া’র সভাপতিত্বে উচ্চ মাধ্যমিক শাখা’র শিক্ষক মিলনায়তনে বিজয় দিবসের তাৎপর্য শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন ও আলোচনা সভা এবং পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

এতে উপস্থিত ছিলেন উপাধ্যক্ষ প্রফেসর ড. আবু জাফর খান, শিক্ষক পরিষদ সম্পাদক প্রফেসর বিজয় কৃষ্ণ রায়, বিজয় দিবস উদযাপন কমিটি’র আহ্বায়ক প্রফেসর মৃণাল কান্তি গোস্বামীসহ সকল বিভাগের বিভাগীয় প্রধান, শিক্ষক ও কর্মচারীবৃন্দ। সভায় মুক্তিযুদ্ধের উপর প্রাণবন্ত প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সাবেক শিক্ষক পরিষদ সম্পাদক ও সহযোগী অধ্যাপক ড. রাজু আহমেদ। সভাপতির বক্তব্যে অধ্যক্ষ প্রফেসর রুহুল আমিন ভূইয়া বলেন, শুধুমাত্র আলোচনা সভা নয় বরং শিক্ষতার পাশাপাশি পারিবারিকভাবে আমাদের সন্তানদের মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানাতে হবে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ করে আদর্শ নাগরিক হয়ে আমাদের সন্তানরা যেন দেশমাতৃকার সেবায় আত্মনিয়োগ করতে পারে সেদিকে সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। এসময় তিনি মহান মুক্তিযুদ্ধে ভিক্টোরিয়া কলেজে থেকে অংশগ্রহন করে যারা শহীদ হয়েছেন তাদের শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন ও তাদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন।

উপাধ্যক্ষ প্রফেসর ড.আবু জাফর খান তার বক্তব্যে বলেন, ২য় বিশ্বযুদ্ধে জার্মান চ্যান্সেলর এডলফ হিটলার তার বিশাল সৈন্য বাহিনীকে উদ্দেশ্য করে বলেন, বাচঁতে হলে আমাদেরকে অবশ্যই আগে আক্রমন করতে হবে, আমরা স্থলভাগে লড়বো, আকাশে লড়বো, জলভাগে লড়বো। যার পরবর্তী প্রেক্ষাপট ছিলো জার্মানসহ তার মিত্রশক্তির করুণ অবস্থা। কিন্তু আমাদের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ৭ মার্চের ভাষণে বলেন, তোমাদের যা কিছু আছে তাই নিয়ে শত্রুর মোকাবেলা করতে হবে। বঙ্গবন্ধু আক্রমন না করে বরং শত্রুর মোকাবেলা করতে বলেছিলেন এবং ঘরে ঘরে একটি অবিচ্ছিন্ন ঐক্য গড়ে তুলেছিলেন ফলে অল্প সময়ের মধ্যে দেশ শত্রুমুক্ত হয়।

আলোচনা শেষে বাদ যোহর উচ্চমাধ্যমিক শাখা, ডিগ্রি শাখা ও নিউ হোস্টেল সমজিদে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া মুনাজাত করা হয়। মধ্যাহ্ন ভোজের পর উচ্চ মাধ্যমিক শাখা থেকে সকল শিক্ষক শিক্ষার্থী ও কর্মচারী টাউন হলে বিজয় র‌্যালীতে স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহন করে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: