করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসায় আইসোলেশন সেন্টার প্রস্তুত করা হলেও যথাযথ সরঞ্জাম নেই কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। চিকিৎসকরা নিজেদের নিরাপত্তা নিয়েই শঙ্কা প্রকাশ করেছেন। স্বেচ্ছায় আইসোলেশন ওয়ার্ডে কাজ করতে চাচ্ছেন না তারা।

শুক্রবার (২০ মার্চ)সরেজমিন গিয়ে এই দৃশ্য দেখা গেছে। এ সময় দেখা যায়, করোনা রোগীদের চিকিৎসা দিতে ২০ শয্যাবিশিষ্ট আইসোলেশনের দুটি ওয়ার্ড করা হচ্ছে। একটি ইউনিটে পাঁচ শয্যার ইতোমধ্যে প্রস্তুত করা হয়েছে। বাকি ১৫ শয্যা প্রস্তুতের কাজ চলছে। তবে চিকিৎসক ও নার্সদের কোনও ধরনের প্রশিক্ষণ নেই। স্বাস্থ্যসম্মত মাস্ক নেই, গ্লাভস, জুতা ও গাউন নেই। এছাড়াও নেই বিশেষায়িত চশমা।

মেডিক্যাল কলেজের সহকারী চিকিৎসক এএসএম আবদুল্লাহ বলেন, ‘করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা দিতে যেসব জিনিসপত্র প্রয়োজন তার কিছুই হাসপাতালে নেই শুধু সাধারণ মাস্ক ছাড়া। মানসম্মত মাস্ক, গ্লাভস, জুতা ও গাউন না থাকলে সেবা দিতে গিয়ে আমরাও আক্রান্ত হতে পারি।’

প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক ডা. মো. মুজিবুর রহমান বলেন, ‘করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কোনও রোগী এলে আমরা চেষ্টা করবো চিকিৎসা দিতে। চিকিৎসক ও নার্সদের আলাদাভাবে কোনও প্রশিক্ষণ না দেওয়া হলেও একাধিক বৈঠক করা হয়েছে। কিছু ঘাটতি রয়েছে। তবে আমরা দায়িত্ব নিয়ে সচেতন। আশা করছি যেকোনও জরুরি অবস্থা মোকাবিলা করা সম্ভব হবে।’

এদিকে গত ১ মার্চ থেকে প্রায় এক হাজার ৪০০ প্রবাসী এসেছে কুমিল্লা জেলায়। তারা অনেকেই হোম কোয়ারেন্টিন না মানায় শঙ্কায় আছেন স্থানীয়রা।

সূত্রঃ বাংলা ট্রিবিউন