ডেইলিকুমিল্লানিউজ ডেস্কঃ কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি, বিশিষ্ট নাক, কান ও গলা বিশেষজ্ঞ ডা. প্রাণ গোপাল দত্তের বক্তব্যের প্রতিবাদে সভা করেছে চান্দিনা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলো।

বিজ্ঞাপন

একটি স্থানীয় পত্রিকায় ‘অনুন্নত চান্দিনা’ এবং ‘চান্দিনা হয়ে মাদক পাচার হয়’ এমন বক্তব্য দেওয়ার প্রতিবাদে গতকাল শুক্রবার চান্দিনা উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে যৌথ সভা করা হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন চান্দিনা পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী গোলাম মোস্তফা।

প্রতিবাদ সভায় বক্তারা বলেন, ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক। তিনি স্বনামধন্য ব্যক্তি। তাঁর মুখে মিথ্যাচার মানায় না। চান্দিনায় উন্নয়ন হয়নি বলে তিনি মিথ্যা প্রলাপ করছেন। কয়েকদিন ধরে বিভিন্ন পত্রিকায় ডা. প্রাণ গোপাল দত্তের যে বক্তব্য ছাপা হয়েছে, তা মিথ্যা ও বানোয়াট বলে দাবি করেন প্রতিবাদ সভায় উপস্থিত নেতাকর্মীরা।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ডা. প্রাণ গোপাল দত্তের বক্তব্যের বিষয়ে সভায় চান্দিনা পৌরসভার মেয়র মো. মফিজুল ইসলাম বলেন, ‘ত্রিপুরা থেকে চান্দিনা হয়ে সারা দেশে মাদক পাচার হয় বলে তিনি যে মন্তব্য  করেছেন তা ভিত্তিহীন। এর মাধ্যমে তিনি চান্দিনাবাসীকে কলঙ্কিত করেছেন। তাঁর মতো একজন স্বনামধন্য ব্যক্তির মুখে এ ধরনের মিথ্যাচার আমরা আশা করি না।’

কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের জনসংখ্যাবিষয়ক সম্পাদক মফিজুল ইসলাম আরো বলেন, ‘আশা করি ডাক্তার সাহেব পুনরায় সাংবাদিকদের ডেকে তাঁর বক্তব্য প্রত্যাহার করবেন। তিনি এলাকায় আসেন না বলেই চান্দিনার উন্নয়ন তিনি চোখে দেখেন না। সাবেক ডেপুটি স্পিকার সংসদ সদস্য অধ্যাপক মো. আলী আশরাফের ডিও লেটারের মাধ্যমে চান্দিনা পৌরসভায় এ পর্যন্ত প্রায় ৩০ কোটি টাকার উন্নয়ন হয়েছে। আরো ১৮ কোটি টাকার উন্নয়নকাজের প্রস্তাবনা বিশ্বব্যাংকে পাঠানো হয়েছে। এলাকায় এলেই তিনি (ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত) উন্নয়ন দেখতে পাবেন। কুমিল্লা বা ঢাকায় বসে চান্দিনার উন্নয়নের বিষয়ে প্রশ্ন তুলে তিনি আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়নকে অস্বীকার করেছেন।’

স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত চিকিৎসক প্রাণ গোপাল দত্তকে উদ্দেশ করে মেয়র বলেন, ‘ভাড়াটে লোক দিয়ে রাজনীতি হয় না। আপনি আওয়ামী লীগের লোক হলে দলীয় কার্যালয়ে আসুন। নেতাকর্মীদের কাতারে দাঁড়ান। অধ্যাপক মো. আলী আশরাফ এমপির সঙ্গে মিলেমিশে জনগণের ভাগ্যোন্নয়নে কাজ করেন। এমপি সাহেবকে অবমূল্যায়ন করবেন না। বিরোধী চক্রকে আমরা দাঁত ভাঙা জবাব দিতে প্রস্তুত।’

‘কর্মীদের বাদ দিয়ে আপনি কীভাবে মনোনয়নের আশা করেন?’ বলে প্রশ্ন ছুড়ে দেন চান্দিনা পৌরসভার মেয়র।

প্রতিবাদ সভায় ডা. প্রাণ গোপাল দত্তের সমালোচনা করে বক্তব্য দেন চান্দিনার বাড়েরা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. খোরশেদ আলম, চান্দিনা পৌরসভার কাউন্সিলর কাজী জাফর উল্লাহ আজাদ, উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক মো. জহিরুল ইসলাম মুন্সী, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো. মহিউদ্দিন, স্থানীয়ভাবে ঘোষিত উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম সুমন, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি মো. মোজাম্মেল হক, বাড়েরা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. সুমন গাজী।

বক্তারা বলেন, চান্দিনার প্রতিটি স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসা, রাস্তাঘাট, পুল-কালভার্টের উন্নয়ন হয়েছে। হতদরিদ্ররা ভিজিএফ, ভিজিডি কার্ড পাচ্ছে। মিথ্যাচার করে রাজনীতিতে আসা যায় না। মাদক পাচারের বিষয়ে সুনির্দিষ্ট তথ্য থাকলে তাদের নাম প্রকাশ করুন। প্রশাসনকে জানিয়ে ব্যবস্থা নিতে সহযোগিতা করুন।

এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন শুহিলপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী মোখলেছুর রহমান, পৌর আওয়ামী লীগ নেতা মো. রফিকুল ইসলাম, শুহিলপুর ইউপির চেয়ারম্যান ইমন হোসেন সরকার, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আমির হোসেন আমু প্রমুখ।

প্রতিবাদ সভায় উপজেলা আওয়ামী লীগ, সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনে বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সূত্রঃ এনটিভি অনলাইন