কুমিল্লার তিতাস উপজেলায় ইভটিজিংয়ে বাধা দেওয়ায় ৫টি বাড়িতে হামলা করে লুটপাট ও ভাংচুর করেছে একদল কিশোর গ্যাং। ঘটনাটি ঘটেছে আজ বুধবার দুপুরে উপজেলার রঘুনাথপুর গ্রামে। তিতাস থানা পুলিশ ঘটনা স্থল পরিদর্শন করেছে।

বিজ্ঞাপন

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, রঘুনাথপুর সবুজ বাংলা প্রিক্যাডেট স্কুলের দুই শিক্ষার্থীকে প্রতিনিয়ত উভটিজিং করে এবং গ্রামের সড়কের উপর শিক্ষার্থীদে নাম লিখে বাজে মন্তব্য করে পাশ্ববর্তী খলিলাবাদ গ্রামের আমির হোসেন, সাইদুল,আশিক, আবু, ছবির, ওমর ফারুক, হানিফ, রাসেল, আলাউদ্দিন, মিজান, সোহরাব, আলমগির ও রাসেল। ওই স্কুলের শিক্ষক রঘুনাথপুর গ্রামের মনু মিয়ার ছেলে সাইফুল বিনয়ের সাথে ইভটিজারদের শিক্ষার্থীদেরকে এমনটি করতে নিষেধ করেন। এতে কিশোর গ্যাং ক্ষিপ্ত হয়ে মঙ্গলবার বিকালে সাইফুলের ছোট ভাই জুয়েল গ্রামের দক্ষিন চক হাটতে গেলে তাকে একা পেয়ে খলিলাবাদ গ্রামের কিশোর গ্যাং গ্রুপটি পরিকল্পিতভাবে জুয়েলকে মারধর করে। তারই জের ধরে আজ বুধবার দুপুরে রঘুনাথপুর গ্রামের দেলোয়ারের সহযোগিতায় পূণরায় খলিলাবাদের ওই কিশোর গ্যাং গ্রুপটি রঘুনাথপুর গ্রামের তিরে ঢুকে মনু মিয়া, সোহাগ, মাছুম, তোফাজ্জল, রফিক ভূইয়া,শাহ-আলম ও মনির মিয়ার ঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে। এতে মনু মিয়ার বিল্ডংয়ে বেশী ভাংচুল ও লুটপাট করে।

এঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। এবিষয়ে তিতাস থানায় এস আই ইউসুফ বলেন ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে এবং খলিলাবাদ গ্রাম থেকে অন্য গ্রামে গিয়ে যে ঘটনাটি ঘটিয়েছে তা মারাত্মক অন্যায় করেছে।