নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া কক্সবাজার যাওয়ার পথে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে দেবিদ্বার উপজেলার ইটাখলায় সংঘর্ষের ঘটনায় যুবলীগ নেতার দায়ের করা মামলায় বিএনপির ২৮ নেতাকর্মী জামিন লাভ করেছে। বুধবার দুপুরে কুমিল্লার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্টেট ৪নং বিচারিক হাকিম বিপ্লব দেবনাথ এর আদালতে হাজির হয়ে নেতাকর্মীরা এ জামিন লাভ করেন। এ সময় আদালত প্রাঙ্গনে উপস্থিত দলীয় নেতাকর্মীরা উল্লাস প্রকাশ করেন।

উল্লেখ্য, গত শনিবার (২৮ অক্টোবর) দুপুরে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া কক্সবাজার যাওয়ার পথে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে স্বাগত জানাতে আসা বিএনপি’র নেতাকর্মীদের সাথে উপজেলার ইটাখলা নামক স্থানে যুবলীগ ও সে¦চ্চাসেবকলীগ নেতাকর্মীদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করে উপজেলার ভানী ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মামুন মেম্বার বাদী হয়ে সোমবার গভীর রাতে দেবিদ্বার উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি মনিরুল ইসলাম তাজু, সাধারন সম্পাদক মোঃ গিয়াস উদ্দিন, পৌর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক মিজানুর রহমান, উপজেলা ছাত্রদলের সাধারন সম্পাদক রবিউল আউয়াল সাইফুল সহ  ৩৩ জন আসামীর নাম উল্লেখ্য পূর্বক আরো ৭০/৮০ জন নেতা-কর্মীকে অজ্ঞাত আসামী করে ১১৩ জনের বিরুদ্ধে থানায় এ মামলা দায়ের করেন। (মামলা নং-২৩/৩১০, তাং-৩০/১০/১৭ইং)। ওই মামলায় বুধবার দুপুরে কুমিল্লার ৪নং সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্টেট আদালতের বিচারিক হাকিম বিপ্লব দেবনাথ এর আদালতে বিএনপির ২৭ জন নেতাকর্মী হাজির হয়ে এবং একজন হাজতে থাকা আসামীর  জামিন চাইলে তিনি জামিন মঞ্জুর করেন। বিবাদী পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন এড. খন্দকার মিজানুর রহমান।

এ ব্যাপারে বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ও দেবিদ্বারের সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব ইঞ্জিনিয়ার মঞ্জুরুল আহসান মুন্সী জানান, নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা এ মামলার অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন ছিল। কারণ বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া কক্সবাজার যাওয়ার পথে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে স্বাগত জানাতে আসা আমাদের বিএনপির নেতাকর্মীদের উপর পুলিশের সহযোগিতায় সরকার দলীয় ক্যাডাররা হামলা চালিয়ে আহত করে। পরে এ মিথ্যা মামলা দায়ের করে নেতাকর্মীদের হয়রানী করা হচ্ছে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: