মাহফুজুর রহমানঃ কুমিল্লার মুরাদনগরে গোমতী নদীর ভাঙ্গনের কবলে পড়ে মুরাদনগর-ইলিয়টগঞ্জ সড়কটি অর্ধেকেরও বেশি অংশ দেবে গেছে। এ কারণে সড়কের ওপর দিয়ে গত দুইদিন ধরে সব ধরনের যন চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে বিকল্প ভালো কোন সড়ক না থাকায় উপজেলা বাসী রাজধানী শহরে যাতায়াতের ক্ষেত্রে চরম দূর্ভোগ পোহাচ্ছে।

জানা যায়, গত কয়েক বছরে উপজেলার ভূবনঘর নামক স্থানে গোমতী নদীর ভাঙ্গনের কারনে রাজধানী শহর ঢাকা যাওয়ার একমাত্র সড়কটির অর্ধেক এরও বেশি আগেই নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। বর্তমানে সড়কটির বাকি অংশের অর্ধেকেরও বেশি দেবে যাওয়ায় যে কোন সময় পুরো সড়কটি নদীতে বিলিন হয়ে যাওয়ার আশংকা করা হচ্ছে।

এ অবস্থায় বিকল্প কোন পথ না থাকায় বাধ্য হয়ে যাত্রীবাহি মুরাদনগর এক্সপ্রেস, ইলিয়টগঞ্জ এক্সপ্রেস, তিশা পরিবহন, মাইক্রোবাস, মালবাহি ট্রাকসহ শত শত যানবাহন প্রায় ২০কিলোমিটার ঘুরে যেতে হচ্ছে রাজধানী শহরে।

এদিকে গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটির সংস্কার নিয়ে কুমিল্লা পানি উন্নয়ন বোর্ড এবং সড়ক ও জনপথের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ পাওয়া গেছে। কুমিল্লা পানি উন্নয়ন বোর্ড বলছে গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটি সড়ক ও জনপথ বিভাগের তাই সড়কের সংস্কার করার দায়িত্ব তাদের। অপরদিকে সড়ক ও জনপথ বিভাগ বলছে নদী ভাঙ্গনের কারনে সড়কটি ভেঙ্গে গেছে। তাই পানি উন্নয়ন বোর্ড যতক্ষন সড়কটির পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া গোমতী নদীতে পাইলিং এর কাজ না করবে ততক্ষন সড়কটির স্থায়ী ভাবে সংস্কার কাজ করা সম্ভব নয়।

এ বিষয়ে কুমিল্লা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল লতিফ বলেন, যেহেতু সড়কটি সড়ক ও জনপথ বিভাগের তাই সড়ক সংস্কারের কাজ তারাই করবে। আমাদের এ ব্যাপারে কিছুই করার নেই।

অপরদিকে কুমিল্লা সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আহাদ উল্লাহ বলেন, যেহেতু সড়কটির পাশেই গোমতী নদী রয়েছে। তাই নদীতে স্থায়ী ভাবে কোন কাজ না করে সড়কটি সংস্কার করলে সমস্যা থেকেই যাবে। যেহেতু পানির করনে সড়কটি ভেঙ্গেছে আর নদীর পারের সুরক্ষার কজটি তারা ভালো বুঝে তাই এই কাজটি পানি উন্নয়ন বোর্ডকে করতে হবে। প্রয়োজনে আমরা সহযোগীতা করবো। সড়কের বিষয়টি আমরা ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের ও পানি উন্নয় বোর্ডকে লিখিত ভাবে যানিয়েছি আসা করছি খুব দ্রুতই সমস্যার সমাধান হবে।

এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য নজরুল ইসলাম বলেন, এ জায়গাটি একাধিকবার ভাঙ্গনের কবলে পরেছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের দায়সারা কাজের কারনে বারবার নদী ভাঙ্গনে এ সড়কটি এখন পুরোপুরি বিলিন হওয়ার পথে। আমি এলাকাবাসির পক্ষে দ্রুত এ সড়কটি মেরামতের দাবী জানাচ্ছি।