কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে ইব্রাহিম খলিল (২৫) নামের এক যুবককে পিটিয়ে হত্যা করার অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার আদ্রা উত্তর ইউপির মেরকট গ্রামে । নিহত ব্যক্তি ওই গ্রামের অহিদুর রহমানের ছেলে। পুলিশ তোফায়েল আহমেদ নামের এক অভিযুক্তকে আটক করেছে।

নিহতের ছোট ভাই মাখসুদুর রহমান অভিযোগ করে বলেন, গত রমজানের দু’দিন পূর্বে একই গ্রামের হাজী আবদুল মান্নানের ছেলে তোফায়েল আহমেদের মৎস্য প্রজেক্টের সামনে পানি যাওয়াকে কেন্দ্র করে নিহত ইব্রাহিমের পিতা অহিদুর রহমানের সাথে মারধরের ঘটনা ঘটেছে। পরে গত ২৭ রমজানে তোফায়েল ও তার ভাতিজা দুলাল মিয়ার ছেলে মনির গংরা ইব্রাহিম খলিলকে একা পেয়ে আক্কাসের ডেকোরেটর দোকানে নিয়ে লাঠি দিয়ে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে
লকডাউন থাকায় তিনি স্থানীয় পল্লী চিকিৎসকের কাছ থেকে স্বাস্থ্য সেবা গ্রহন করেন।

বিষয়টি স্থানীয় জহির মেম্বারকে অবগত করলে তিনি রোজার ঈদের দুই-তিন দিন পর শালিস বৈঠক করে সমাধান করার আশ্বাস দেন। পরে তিনি শালিস বৈঠক না করে নানা তালবাহানা করতে থাকে । শুক্রবার (১২জুন) বিকেলে তার ভাই ইব্রাহিমের বুুকে ব্যাথা করছে বলে চিৎকার করে মাটিতে পড়ে যায়। কিছুক্ষণ পরে ঘটনাস্থলে তার মৃত্যু হয়। ইউপি মেম্বার জহিরুল ইসলাম জানান, পানি যাওয়াকে কেন্দ্র করে ইব্রাহিমের সাথে মারধর এর ঘটনা ঘটে। এটি স্থানীয় ভাবে মিমাংসা করার চেষ্টা চলছে। কিন্তু গত চার/ পাঁচ দিন পূর্বে ইব্রাহিম বিষ খেয়ে লাকসাম উপজেলার একটি হাসপাতালে চিকিৎসা নেন। বিষের কারনে তার মৃত্যু হয়েছে।

এ বিষয়ে নাঙ্গলকোট থানার অফিসার ওসি বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, খবর পেয়ে ঘটনা স্থলে গিয়ে নিহতের লাশ উদ্ধার করি। ঘটনার অভিযুক্ত তোফায়েলকে আটক করা হয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে নিহতের

লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসলে মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: