কুমিল্লার লাকসামে করোনা চিকিৎসায় নিয়োজিত ‘র‌্যাপিড রেসপন্স টিম’র অন্যতম এক সদস্য নিজেই আক্রান্ত হয়েছেন। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল টেকনোলজিস্ট (ল্যাব) মোঃ ছানা উল্ল্যাহ বর্তমানে প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ পর্যন্ত উপজেলায় মোট ১১ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলেন। তবে আক্রান্ত অন্যান্য রোগীদের শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট সূত্র।

বিজ্ঞাপন

জানা গেছে, উপজেলাব্যাপী ছুটে বেড়ানো এ স্বাস্থ্যকর্মী দিনরাত করোনায় আক্রান্ত রোগীদের শনাক্ত ও চিকিৎসায় নিরলসভাবে কাজ করেছেন। ‘করোনা র‌্যাপিড রেসপন্স টিম’ প্রধান উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা ডাঃ মোহাম্মদ আবদুল আলী নেতৃত্বে রোগীদের নমুনা সংগ্রহে তিনি ছিলেন অগ্রসৈনিক। তার আক্রান্তের খবরে সহকর্মীদের মাঝে হতাশার ছায়া নেমে এসেছে। তাদের মনোবলে চাঙ্গাভাব মলিন হতে চলেছে।

করোনা র‌্যাপিড রেসপন্স টিমের অন্যতম সদস্য ডাঃ আবদুল মতিন জানান, ওই স্বাস্থ্য কর্মীর পরিবারের আরো ৩ সদসদ্যের নমুনা পরীক্ষা করা হলেও তাদের দেহে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ পাওয়া যায়নি।

লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা ডাঃ মোহাম্মদ আবদুল আলী জানান, অসুস্থ হওয়ার পর তার নমুনা সংগ্রহ করে ল্যাবে পাঠানোর পর আজ (৩ মে) পজেটিভ রিপোর্ট আসে। বর্তমানে তাকে প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। তার পরিবারের সদস্যের মাঝে সংক্রমণ হয়নি।