মারুফ আহমেদঃ কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার ঘোষনগর এলাকার কবির আহাম্মদের পুত্র দৈনিক ভোরের সময় পত্রিকার বিশেষ প্রতিনিধি প্রেস ইউনিটি (বুড়িচং-ব্রাহ্মণপাড়া) এর সদস্য মুহাম্মদ রকিবুল হাসানের উপর হামলার ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছেন প্রেস ইউনিটি (বুড়িচং-ব্রাহ্মণপাড়া) কর্মরত সাংবাদিক বৃন্দ। এছাড়া হামলাকারীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে বিচারের দাবী জানানো হয়।

জানা যায়, বুড়িচং উপজেলার উদয়নবাগ গ্রামের সুরুজ মিয়ার ছেলে মোহাম্মদ আমিনুল ইসলাম যিনি বর্তমানে ঢাকা বাউনিয়া উত্তরখান এলাকায় বসবার করে আসছে, আমিনুল ইসলাম প্রায় ৬য় মাস পূর্বে সাংবাদিক রকিবুল ইসলামের সহকর্মী দৈনিক খবরের আলো পত্রিকার ক্রাইম রিপোর্টার মোঃ মাহমুদুল হাসান মিয়াজী ও মোঃ তৌহিদ হৃদয়’কে ইউ.এস.বাংলা এয়ারলাইন্সে চাকুরী দেয়ার কথা হয়। চাকুরী বাবদ ৩ লক্ষ ৮৫ হাজার টাকা দেয়ার চুক্তি হয়। পরে সাংবাদিক রকিবুল হাসান এর ঢাকা মেরুল বাড্ডায় মোঃ সাইফুল ইসলাম (অশ্রু), মোঃ সাইফুল ইসলাম (অপু) ও কামাল হোসেনের উপস্থিতিতে নগদ ৩ লক্ষ্য ৮৫ হাজার টাকা আমিনুল ইসলামের হাতে দেয়া হয়। টাকা নেয়ার সময় আমিনুল ইসলাম জামানত হিনেবে স্ট্যাম্পসহ যাবতীয় কাগজপত্র দিয়ে যায়। ৬ মাস অতিবাহিত হওয়ার পরও চাকুরী দিতে না পারায় আমিনুল ইসলামের কাছে টাকা ফেরত চায় সাংবাদিক রকিবুল হাসান। ইতিমধ্যে আমিনুল ইসলাম টাকা ফেরত দিবে বলে বেশ কয়েটি তারিখ দেয়। সম্প্রতি গত ১৮ জুন আমিনুল ইসলামকে ফোন দিলে সে রকিবুল হাসানকে গালমন্দ করে। এক পর্যায়ে পরদিন অর্থাৎ ১৯ জুন তাঁর ঢাকার বাসা থেকে টাকা আনে বলে। সে অনুযায়ী ১৯ জুন দুপুর ১২ টায় সাংবাদিক রকিবুল ইসলাম ও তাঁর সহকর্মীরা আমিনুলের বাসায় যায়। এসময় আমিনুল কৌশলে তাঁদের ঘরের মধ্যে আটকে রেখে মারধর করে আহত করে। পরে স্থানীয় লোকজন তাঁদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। বর্তমানে সাংবাদিক রকিবুল হাসান ও তাঁর সহকর্মীরা ঢাকা মেডিক্যল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে।

নেক্কার জনক এ হামলা নিন্দা জানিয়ে প্রেস ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক ও এস.এ টিভি কুমিল্লা প্রতিনিধি আবু মুসা এক বিবৃতিতে বলে হামলাকারীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে বিচার করতে হবে। না হয় সকল সাংবাদিকদের নিয়ে কঠোর আন্দোলন ঘোষনা করা হবে। #

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: