কুমিল্লার দেবিদ্বারে যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা আলফু ফকিরের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন হ্যালো ছাত্রলীগ।

রোববার রাতে হ্যালো ছাত্রলীগের টিম প্রধান ও ছাত্রলীগ কুমিল্লা উত্তর জেলা সভাপতি আবু কাউছার অনিক জানান, ছাত্রলীগ মানবিক কাজ খুঁজে খুঁজে বের করে তাদের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করে। যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা আলফু ফকিরের চিকিৎসার যাবতীয় খরচ বহন করবে হ্যালো ছাত্রলীগ। যুদ্ধাহত আলফু ফকিরের খোঁজ খবর রাখার জন্য হ্যালো ছাত্রলীগের একটি প্রতিনিধি দল পাঠানো হয়েছে। তারা তার সমস্যা চিহ্নিত করে সোমবার সকালে কুমিল্লায় একটি প্রাইভেট হাসপাতালে এনে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে তার শরীরের বিভিন্ন পরীক্ষা নিরিক্ষা করে ও প্রয়োজনীয় ওষধপত্র দেয়া হয়।

যুদ্ধাহত আলফু ফকির (৭২) দীর্ঘদিন ধরে নানা জটিল ও কঠিন রোগে ভুগছেন। তার হাতে পায়ে পানি জমে গেছে। এছাড়া তিনি করোনা পজেটিভ থেকে সম্প্রতি সুস্থ হয়েছেন। সাদামাঠা এ লোকটি একটি ধর্মীয় বিশ্বাসে লাল সালু পড়ে ঝড়, বৃষ্টি, রোদ-তাপ, প্রকোট শীতেও খালি গায়ে ঘুরে বেড়িছেন। কখনো কারোর সঙ্গে উচ্চবাচ্য, তর্কে জড়ানো, কারোর কাছে হাত পাতা, মিথ্যে বলা, কারোর ক্ষতি করেছে এমন নজির নেই। জীবনের শেষ সময় এসে অর্থের অভাবে চিকিৎসা সেবা না পেয়ে অবহেলায় অনাদরে মরতে বসেছেন তিনি।

যুদ্ধাহত মুক্তিযাদ্ধা আলফু ফকির ১৯৭১ সালের ৩১ মার্চ ১৪ জনের একটি পাক সেনাদল পায়ে হেঁটে ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে ময়নামতি সেনা ক্যাম্পে যাওয়ার পথে দেবিদ্বারে মুক্তিকামী জনতার প্রতিরোধে অবরুদ্ধ হয়। পুরো দলটিকে পরাজিত করতে ৩৩ বাঙালি শহিদ এবং অসংখ্য লোক আহত হন। ওই যুদ্ধে আলফু ফকিরের হাতে একটি গুলিবিদ্ধ হয়।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: