কুমিল্লা নগরীর ১৫ নং ওয়ার্ডের বজ্রপুর এলাকায় ই’য়াবা ব্যবসায়ী স’ন্ত্রাসী মেরাজের ছু’রিকাঘাতে প্রাণ গেল কলেজ শিক্ষার্থী মিথুন ভূইয়ার (২২)। কোতয়ালী থানা পুলিশ মেরাজের ঘর থেকে একটি ছোরা উদ্ধার করেছে। মিথুন ভূঁইয়া হ’ত্যা মামলার মূল আসামি মিরাজ এবং শরিফুল ইসলাম রাসেল কে শুক্রবার দুপুরে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে।

শুক্রবার (২৭ আগস্ট) সকালে ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মিথুন ভূইয়ার মৃ’ত্যু হয়। নি’হত মিথুন ভূইয়া নগরীর ১৫নং ওয়ার্ডের বজ্রপুর মৌলভীপাড়ার চেয়ারম্যান গলির লিটন মিয়ার ছেলে। ঘা’তক মেরাজ একই এলাকার রহিম মিয়ার ছেলে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, বুধবার সন্ধ্যায় মা’দক ব্যবসায় বাধা দেয়ার অজুহাতে চেয়ারম্যান গলির সামনে মিথুন ভূইয়ার বুকে ছু’রিকাঘাত করা হয়। মিথুন ভূইয়া দুই হাত দিয়ে প্রতিরোধ করার চেষ্টা করলে হাতও কেটে র’ক্তাক্ত হয়।

স্থানীয়রা তাকে দ্রুত হাসপাতালে নিলে চিকিৎসকরা তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেওয়ার পরামর্শ দেন। ওই দিন রাতে তাকে ঢাকায় নেওয়া হয়। গতকাল রাতে তাকে আবার কুমিল্লায় আনা হয়। পরে রাতে তার অবস্থার আবার অবনতি হলে তাকে কুমিল্লা টাওয়ার হাসপাতালে নেওয়া হয়। শুক্রবার ভোরে পুনরায় ঢাকা নেয়ার পথে তার মৃ’ত্যু হয়।

সকালে কোতোয়ালি থানার ওসি আনোয়ারুল আজিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। কোতোয়ালি থানার ওসি আনোয়ারুল আজিম জানান, ঘা’তকদের দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে।

সূত্রঃ মানবজমিন

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: