ডেস্ক রিপোর্টঃ বরুড়া উপজেলায় চলন্ত বাসে অজ্ঞানপার্টির খপ্পরে পড়ে আহত হোটেল বাবুর্চি দুলাল মিয়া (৪৫) কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

রোববার (৪ ফেব্রুয়ারি) রাত ১১টার দিকে কুমেক হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। এদিকে চিকিৎসার অবহেলার অভিযোগ করায় নিহতের পরিবারের কয়েকজন সদস্যকে মারধর করেছে হাসপাতালের ইন্টার্ন চিকিৎসকরা।

নিহত দুলাল মিয়া কুমিল্লা নগরীর কাপ্তানবাজার এলাকার বাসিন্দা। তিনি নগরীর নজরুল এভিনিউ রোডের উৎসব হোটেলের বাবুর্চি ছিলেন।

তার এক নিকটাত্মীয় জানান, দুলাল মিয়া সকালে বরুড়া যাওয়ার সময় অজ্ঞানপার্টির খপ্পরে পড়েন। এ সময় স্থানীয়রা তাকে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে কুমেক হাসপাতালে নিয়ে আসে। রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। হাসপাতালে ঠিকমতো চিকিৎসা না দেওয়ার বিষয়টি চিকিৎসকদের কাছে জানতে চাওয়া হলে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা নিহতের ছোট ভাই জালালসহ কয়েকজনকে মারধর করে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) সালাহ উদ্দিন জানান, অজ্ঞানপার্টির খপ্পরে পড়ে একজনের মৃত্যুর খবর পেয়ে হাসপাতালে আসি। এসে মারামারির ঘটনা দেখতে পাই। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

সূত্রঃ বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: