হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের তীর্থস্থান চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডের চন্দ্রনাথ পাহাড়ে আজান দিয়ে বিতর্কিত পোস্ট দেওয়া যুবকসহ দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে চট্টগ্রাম জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। সাম্প্রতিককালে মুহাম্মদ শিব্বির বিন নজির নামের ফেসবুক আইডি থেকে চন্দ্রনাথ পাহাড়ে আজান দেওয়ার একটি ছবি ভাইরাল হয়। সেই যুবক ছবিটি ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে লিখেন— ‘চন্দ্রনাথ পাহাড়ের চূড়ায় উঠে আজান দিলাম। আলহামদুলিল্লাহ। ইনশাআল্লাহ অতিশীঘ্রই সেখানে ইসলামের পতাকা উড়বে।’

এই পোস্টটি দেওয়ার পর হিন্দু ধর্মালম্বীদের মধ্যে শুরু হয় ব্যাপক সমালোচনা। সেই যুবককে আইনের আওতায় নিয়ে আসার দাবি করেন অনেকে। সোমবার (৩০ আগস্ট) এই ঘটনায় তীব্র সমালোচনার মুখে চট্টগ্রাম জেলার গোয়েন্দা পুলিশ কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুর থেকে দুজনকে আটক করেছে। এদের একজন পোস্টদাতা মুহাম্মদ শিব্বির বিন নজির এবং অপরজন মো. রিফাত। এর মধ্যে রিফাত ঢাকার মোহাম্মদপুরের একটি মাদ্রাসার ছাত্র। ওই মাদ্রাসাটি হেফাজত নেতা মামুনুল হকের পরিবার পরিচালনা করে থাকে।

গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চট্টগ্রাম জেলার গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক কেশব চক্রবর্তী। তিনি বলেন, গ্রেপ্তার দুজনের সঙ্গে জঙ্গিদের কোনো সম্পর্ক আছে কিনা সেটা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। সীতাকুণ্ড সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আশরাফ হোসেন বলেন, এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

এদিকে এই ঘটনার পর মন্দিরের নিরাপত্তার খাতিরে সীতাকুন্ড স্রাইন কমিটির পক্ষ থেকে কিছু পদক্ষেপ নেওয়া হয়। সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট চন্দন দাশ জানান, মন্দিরের নিরাপত্তার স্বার্থে এখন থেকে চন্দ্রনাথ মন্দিরসহ সকল মন্দিরের প্রবেশমুখে গেইট স্থাপন ও নিরাপত্তাপ্রহরী নিয়োগের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এছাড়াও ‘মৃত্যুঞ্জয়ী মিত্র’ স্মৃতিস্তম্ভের আগে দর্শনার্থীদের পরিচয় রেজিস্ট্রারে অর্ন্তভুক্ত করারও পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: