কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে স্ত্রী রুজিনা আক্তারের নগ্ম ছবি ভাইরালের হুমকি দিয়েছেন দুবাই প্রবাসী স্বামী মনু মিয়া। এতে লোক লজ্জায় স্ত্রী রুজিনা আক্তার গলায় উড়না পেছিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলে দাবী করেন তার মা ও ভাই। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার রাতে উপজেলার মৌকরা ইউপির ময়ূরা মাধ্যম পাড়া গ্রামে। নিহত রুজিনা এক কন্যা সন্তানের জননী। মারিয়া আক্তার নামের ৭ বছরের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে তার। গত ৮/৯ বছর আগে প্রথম স্বামীর সংসার থেকে বিচ্ছেদ হয় । এর পর গত দেড় বছর আগে প্রবাসী বেতাগাও গ্রামের মনু মিয়ার সাথে মৌকরা ইউপির ময়ূরা মাধ্যম পাড়া গ্রামের মৃত আব্দুল মালেকের মেয়ে রুজিনা বেগমের বিয়ে হয়। গত ৬ মাস আগে রুজিনার স্বামী দুবাই চলে যান।

প্রবাসী স্বামী মনু মিয়া রুজিনার নগ্ম ছবি, রুজিনার ছোট ভাই কলেজ পড়ুয়া রাকিব হাসানের মোবাইল পাঠাতে থাকেন এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দিয়ে আসছেন। এতে স্বামী স্ত্রী মধ্যে বিরোধ চলে আসছে।

নিহতের ছোট ভাই রাকিব হাসান বলেন- আপুর আগে একটি বিয়ে হয়েছে। ওই ঘরে মারিয়া আক্তার নামে তার একটি ভাগ্মি রয়েছে। মঙ্গলবার রাতে মা, আপু, ভাগ্নিসহ রাতের খাবার পেয়ে ঘুমিয়ে পড়ি। একই ঘরের একটি কক্ষে আমি থাকি, অন্য কক্ষে আপু ও তার মেয়ে থাকেন। রাত আনুমানিক ৩ টার পর আপুর ছোট মেয়ে মারিয়া এসে বলেন- মামা আমি বাহিরে যাবো। তখন বলি তোমার আম্মুকে বলো, এসময় তার কক্ষে গিয়ে দেখি আপু উড়না দিয়ে ভুতুড়ের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় রয়েছে। ভুতুড় থেকে উড়না খুললে লাশ মাটিতে পড়ে যায়। রাতে আপু আর দুলা ভাই মোবাইলে ঝগড়া করতে শুনেছি। বিভিন্ন সময় দুলা ভাই আপুর নগ্ম ছবি তার মোবাইল পাঠাতো।

নিহতের মা মমেনা বেগম বলেন- প্রবাসী স্বামী তার মেয়ের নগ্ম ছবি বিভিন্ন লোকের কাছে পাঠাতো। আপন ছোট ভাই(শালার) মোবাইলেও পাঠাত। এতে লোক লজ্জায় মেয়ে আত্মহত্যা করেছেন।

এব্যাপারে নাঙ্গলকোট থানার ওসি আব্দুল নূর বলেন, নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে আত্মহত্যা প্ররোচনার মামলার প্রস্তুতি চলছে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: