মো. জাকির হোসেনঃ বাহরাইনের রাজধানী মানামায় মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৭টায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরনে একটি ভবন ধবস দেখে এসে হৃদক্রিয়া বন্ধ হয়ে বুড়িচংয়ের মো: সেলিম মিয়া (৪৩) নামে এক প্রবাসীর মৃত্যু হয়েছে।

বাহরাইনে বসবাস রত রাছেল স¤্রাট,আব্দুল জব্বার জানান বাহরাইনের স্থানীয় সময় মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টায় বাংলাদেশী কুমিল্লা-চাঁদপুরে প্রবাসী অধিকাংশ লোকজন বাহরাইনের রাজধানী মানামায় একটি ৪ তলা ভবনে বসবাস করত।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টায় প্রবাসীরা ডিউটি শেষে রুমে ফিরে সিলিন্ডার গ্যাস দিয়ে রান্না বান্না করার সময় বিকট শব্দে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরন ঘটে। এসময় ভবনের অধিকাংশ লোকজন আহতের ঘটনা ঘটে,তবে কতজন হতাহত হয়েছে তা এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি । এঘটনার খবর শুনে কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার পীরযাত্রাপর গ্রামের মফিজুল ইসলামের ছেলে সেলিম মিয়া নামের এক প্রবাসী রাতে ওই ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখে এসে তার বাসায় হৃদক্রিয়া বন্ধ হয়ে স্থানীয় সময় রাত ১টায় বাংলাদেশ সময় ভোর ৫টায় তিনি মৃত্যু বরন করেন। বাহরাইনের প্রবাসীরা এ অবস্থা দেখে তারা স্থানীয় পুলিশকে খবর দিয়ে বাহরাইনের সালমান হাসপাতালে পুলিশের সহযোগিতায় নিয়ে যান।

সেলিম মিয়ার পিতা মো: মফিজুল ইসলাম জানান সেলিম মিয়া গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরনের ঘটনাস্থল দেখে এসে তার স্ত্রী শারমিন আক্তারের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বলতে বলতে লাইন কেটে যায়। পরে বাহরাইনে অবস্থান রত গ্রামের প্রবাসী রাছেল স¤্রাট ও জব্বারের মাধ্যমে মৃত্যুর খবর পেয়ে আমাদের মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়ে। গত সাড়ে ৩বছর পূর্বে সেলিম মিয়া প্রায় ৪ লক্ষাধীক টাকা সুদী ও ধারদেনা করে বাহরাইনে চাকরী নিয়ে যায়। সেলিম মিয়ার ৩ মেয়ে রয়েছে এর মধ্যে বড় মেয়ে ইসরাত জাহান (১৭) পীরযাত্রাপুর জোবেদা খাতুন কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্রী, ২য় নুসরাত জাহান (১২) স্থানীয় পীরযাত্রাপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী,৩য় মাসুমা আক্তার (৭) একই গ্রামের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২য় শ্রেণীর ছাত্রী। প্রবাসী সেলিম মিয়ার প্রায় ৩ লক্ষ টাকা ঋণ রয়ে গেছে। সেলিমের রয়েছে পিতা মাতা- ৪ ভাই,২ বোন,স্ত্রী ও ৩ মেয়ে। সেলিম তার ভাইয়েরা পরিবার নিয়ে আলাদা ভাবে বসবাস করে। এনিয়ে পরিবারটি এখন তাকে হারিয়ে হতাশা গ্রস্ত হয়ে পড়েছে । সেলিমের বাড়িতে এখন চলছে শোকে মাতম।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: